কবি হায়াৎ সাইফ স্মরণসভা অনুষ্ঠিত

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২১ মে ২০১৯, ১৫:৩৭

কবি হায়াৎ সাইফের স্মরণসভায় বক্তারা বলেছেন, কবি হায়াৎ সাইফ বর্ণাঢ্য কর্মজীবন এবং বহুমুখী প্রতিভা ও সাহিত্যকৃতির অধিকারী ছিলেন। ছিলেন অসাম্প্রদায়িক ও মানবতাবাদী লেখক।

বক্তারা বলেন, কবিতায় নৈর্ব্যক্তিক ব্যঞ্জনায় ব্যক্তির অন্তর্গত আর্ত অবয়ব যেমন তিনি দক্ষতায় ফুটিয়ে তুলেছেন, তেমনি দেশ, মাটি ও মানুষের কথা তুলে ধরেছেন। গদ্যরচনায়ও তাঁর সাফল্য সামান্য নয়।

সদ্য প্রয়াত এই কবির স্বরণে বাংলা একাডেমি আয়োজিত স্বরণসভায় বক্তারা এই অভিমত রাখেন। 

একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার হলে গতকাল আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার।

আলোচনায় অংশ নেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী, কবি আসাদ চৌধুরী, কথাসাহিত্যিক আনোয়ারা সৈয়দ হক, নাট্যজন ফেরদৌসী মজুমদার, কবি কাজী রোজী, কবি জাহিদুল হক, সাবেক কূটনীতিক মহিউদ্দিন আহমেদ, কবি আসাদ মান্নান এবং কবি হায়াৎ সাইফের দুই পুত্র জিসান সাইফ এবং মেহরান সাইফ। স্মরণসভায় প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম প্রেরিত লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলা একাডেমির উপপরিচালক ড. আমিনুর রহমান সুলতান। স্মরণসভা সঞ্চালনা করেন বাংলা একাডেমির কর্মকর্তা পিয়াস মজিদ।

লিখিত বক্তব্যে এইচ টি ইমাম বলেন, ষাটের দশকের আধুনিক কবিদের মধ্যে হায়াৎ সাইফ ছিলেন অন্যতম। উচ্চপদস্থ একজন সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে একদিকে যেমন তিনি তাঁর প্রাত্যহিক দায়িত্ব সামলেছেন, অপরদিকে নিজের হৃদয় নিংড়ানো ভালবাসা ও চেতনার নিমগ্নতা দিয়ে সৃজন করেছেন অনন্যসাধারণ কাব্যগাথা। সজ্জন, সদালাপী এই মানুষটি কখনো খ্যাতির মোহে ধাবিত হননি, কোন প্রত্যাশা বা উচ্চাকাক্সক্ষার কাছেও নিজের মনোজগতকে বিসর্জন দেননি।

সভাপতির বক্তব্যে রামেন্দু মজুমদার বলেন, হায়াৎ সাইফ বর্ণাঢ্য কর্মজীবন ও সাহিত্যকৃতির অধিকারী ছিলেন। একজন রুচি¯িœগ্ধ, জ্ঞানযোগী মানুষ হিসেবে তাঁর কোনো তুলনা ছিলনা। সৃষ্টি, সুন্দর এবং কল্যাণের পথে তিনি সবসময় নিজেকে নিবেদিত রেখেছেন। আমাদের সকলের স্মৃতিতে হায়াৎ সাইফ এভাবেই ভাস্বর হয়ে থাকবেন।
খবর বাসস

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ