নৌ চলাচলে বিঘ্ন ঘটায় এমন ব্রিজ ভাঙা হবে : তাজুল ইসলাম

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৫ নভেম্বর ২০২০, ১৯:৩৪ | আপডেট : ১৫ নভেম্বর ২০২০, ২১:২২

ঢাকার চারপাশে নৌ চলাচলে বাঁধা সৃষ্টিকারী ব্রিজগুলো ভেঙ্গে নতুন ব্রিজ নির্মাণ করা হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

রোববার (১৫ নভেম্বর) মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের সম্মেলন কক্ষে ঢাকার চারপাশের নদী দখলমুক্ত, দূষণরোধ ও নাব্যতা বৃদ্ধির জন্য গঠিত মাস্টার প্ল্যান কমিটির সভা শেষে এ কথা জানান তিনি ।

নদী দখলমুক্ত, দূষণরোধ ও নাব্যতা বৃদ্ধির জন্য গঠিত মাস্টার প্ল্যান কমিটির সভাপতি তাজুল ইসলাম বলেন, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)সহ যে সকল মন্ত্রণালয় বা অধিদপ্তর থেকে ঢাকার চারপাশের নদ-নদীর উপর ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে সেগুলোর মধ্যে নৌ চলাচলে বিঘœ ঘটায় এমন ব্রিজ ভেঙ্গে নৌ চলাচলের উপযোগী করে নতুন ব্রিজ নির্মাণ করা হবে।

তিনি বলেন, নদী দখলমুক্ত, দূষণরোধ এবং নাব্যতা বৃদ্ধিসহ রাজধানীর উন্নয়নে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর বা সংস্থা থেকে অনেক প্রকল্প নেয়া হয়েছে। এ সকল প্রকল্পের মধ্যে ওভারল্যাপিং অর্থাৎ একই কাজের জন্য একাধিক প্রকল্প আছে কিনা তা যাচাই-বাছাই করার জন্যও একটি কমিটি গঠন করা হবে।

মন্ত্রী বলেন, প্রকল্পসমুহের অব্যবস্থাপনা দূর করে সব প্রতিষ্ঠানের সমন্বয় করে কাজ করার কোন বিকল্প নেই। এজন্য মন্ত্রণালয়, সিটি কর্পোরেশন ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের নেওয়া প্রকল্পের তালিকা চাওয়া হয়েছে। সকল প্রকল্পকে এই মাস্টার প্ল্যানের আওতায় আনা হবে।

ঢাকার চারপাশের নদ-নদীর ৯০ শতাংশ দখলমুক্ত হয়েছে এবং কিছু জায়গায় মসজিদ, মন্দির ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান থাকায় জটিলতা রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের মহামারীর জন্য নদী দখলমুক্ত, দূষণরোধ এবং নাব্যতা বৃদ্ধির কাজে ধীরগতি এসেছে। যে কেউ নদ-নদী, খাল-বিল, দখল করে থাকুক না কেন তাদের উচ্ছেদ করে দখলমুক্ত করা হবে।
তাজুল বলেন, রাজধানীতে চিহ্নিত খালগুলোর একটির সঙ্গে আরেকটির সংযোগ স্থাপন করার জন্য প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে, যেখানে সাধারণ মানুষের চলাচলের জন্য দুইপাশে ওয়াকওয়ে এবং ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট চলাচলের ব্যবস্থা থাকবে।

মাস্টার প্ল্যান বাস্তবায়নের সময়-সীমা সম্পর্কে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি বলেন, মাস্টার প্ল্যানের কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। দশ বছর মেয়াদী এই প্ল্যানের কাজ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শেষ হবে।

এর আগে অনুষ্ঠিত সভায় নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াত আইভি, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব, সচিবসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও সংস্থার প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

এই বিভাগের আরো সংবাদ