ধর্মপাশায় কৃষকের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১৩:০০ | আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১৩:০২

সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার বংশিকুন্ডা দক্ষিণ ইউনিয়ন দুলাশিয়া গ্রামের কৃষক জালাজ মিয়ার ওপর সন্ত্রাসী হামলার ও হামলাকারীদের আইনের আওতায় এনে দুষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ও দুলাশিয়া গ্রামের পাশে সরকারি খাজ জমি বর্তমান রেকর্ড বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

গতকাল সোমবার বিকলের দিকে উপজেলার বংশিকুন্ডা দক্ষিন ইউনিয়নে দুলাশিয়া গ্রামবাসীর আয়োজনে ওই গ্রামের সমানের সড়কে প্রায় দুইশর্তাধিক মানুষের অংশগ্রহণে এ মানববন্ধন কর্মসূচির পালন করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন দুলাশিয়া গ্রামের বাসিন্দা মনঞ্জিল মিয়া, সাবেক ইউপি সদস্য মো.  মারফত  আলী,  বংশিকুন্ডা দক্ষিন ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা আব্দুল হাকিম, ইউপি ছাত্রলীগের সভাপতি  শেখ বদরুজ্জামান কাঞ্চন, দুলাশিয়া গ্রামের বাসিন্দা মো. সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, দুলাশিয়া গ্রামের পাশে প্রায় ১০ একর সরকারি খাস জমি দীর্ঘদিন ধরে ওই গ্রামের লোকজন ভোগ দখল করে আসছিলেন।  কিন্তু ওই   গ্রামের  ভূমি দস্যু  আব্দুল হাই ও আলী নূর মাষ্টার তার  লোকজনেরর  নামে উক্ত সরকারি খাস জমি ভূয়া কাজপত্রের মাধ্যমে তার তাদের নিজের নামে সেটেলমেন্ট জরিপ করে নেন এবং তখন  থেকেই তার উক্ত  খাস জমির মালিক দাবি করে আসছিলেন।  

এ নিয়ে গত ১৬ অক্টোবর ২০ তারিখে  উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু তালেবের কাছে ওই সরকারি  খাস জমির বর্তমান রেকর্ড জনস্বার্থে বাতিলের জন্য গ্রামবাসীর পক্ষে জালাল মিয়া নামে এক ব্যাক্তি লিখিত   আবেদন করেন। আবেদনের প্রক্ষিতে বিষয়টি তদন্তের জন্য মধ্যনগর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সহকারী তহশিলদার নির্দেশ দেন। পরে সোমবার দুপুরে ওই তহশিলদার বিষয়টি তদন্তের জন্য ঘটনারস্থলে যান।

এ সময় তহশিলদারের উপস্থিতিতেই আব্দুল হাই ও আলী নূর মাষ্টার নেতৃত্বে তাদের লোক জন জালাল মিয়ার ওপর সন্ত্রাসী হামলার শিকর হন।  কৃষক জালাজ মিয়ার  ওপর সন্ত্রাসী হামলার ও হামলাকারী আব্দুল হাই ও আলী নূর মাষ্টারসহ সকল অপরাধীদেরকে দূত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি ও দুলাশিয়া গ্রামের পাশে প্রায় ১০ একর সরকারি খাজ জমি বর্তমান রেকর্ড বাতিলের  দাবি জানান।

এ ব্যাপরে আলী নূর মাষ্টার বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগটি মিথ্যা ও বানোয়াট।

মধ্যনগর থানার ওসি মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, এ ঘটনাটি আমি শুনি নাই লিখিত অভিযোগে পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ধর্মপাশা উপজেলা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো.  আবু তালেব বলেন, এ বিষয়টি নিয়ে দুইপক্ষকেই ডাকানো হয়েছে। কাগজপত্র দেখে প্রোয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এবিএন/মো. ইমাম হোসেন/গালিব/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ