বরিশালে দু’গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলা

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১১:০৯

বরিশাল নগরীর ১০নং ওয়ার্ডের ভাটারখাল কলোনীতে পূর্ব বিরোধকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে নারীসহ অন্তত ১২ জন আহতের খবর পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে ভাটারখাল কলোনীর বাসিন্দা হালিম শাহ ও লেবার সরদার আলমগীরের লোকজনের মধ্যে এই সংর্ষের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিবেশ নিয়ন্ত্রণ করে। আহতদের উদ্ধার করে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে এদের মধ্যে গুরুতর আহত সাদ্দাম শাহকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, হালিম শাহ ও লেবার সরদার আলমগীরের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এনিয়ে উভয়পক্ষের মামলাও চলমান আছে। সেই বিরোধকে কেন্দ্র করে আলমগীরের গ্রুপের লোকজন বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা রাতে হালিম শাহ’র লোকজনের উপর আকস্মিক ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়েছে বলে জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সংঘাতের একপর্যায়ে হালিম শাহ’র বাসায় হামলা চালিয়ে ভাংচুর করেছেন বলে তাদের অভিযোগ। এসময় নারীদের মারধর করা হয়। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ১২ জন আহত হয়েছেন। এসময় হালিম শাহ’র ছেলে সাদ্দামকে কুপিয়ে জখম করে প্রতিপক্ষরা। রক্তাক্ত সাদ্দামসহ সকলকে উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। খবর পেয়ে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উচ্চপদস্থ এক কর্মকর্তাসহ কোতয়ালি থানা পুলিশের ওসি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তবে এই ঘটনায় পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। সাদ্দাম শাহ’র ভাই তারেক শাহ  জানান, হামলায় সাদ্দাম ছাড়াও  তাদের পক্ষের তানিয়া, সাদ্দাম শাহ’র স্ত্রী নিপু সহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। কিন্তু সাদ্দামের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার লক্ষে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। এই হামলার ঘটনায় দু’পক্ষ থেকে মামলা করা হয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, র্দীঘ দিন ধরে আলমগীর বাহিনীর হালিম শাহ’র উপর একের পর এক হামলা চালিয়ে আসছে। এবং তাদের মারধর করে আহত করেছে বেশ কয়েকবার।

এদিকে তানিয়া জানিয়েছেন, বরিশালে কোতোয়ালী থানার ওপেন হাউজ ডে, মাদক ব্যবসায়ী, কিশোর গ্যাংদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেওয়ায় বাদীর পরিবারকে কুপিয়ে জখম তারা। উল্লেখ, বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুপুর আড়াইটার দিকে নগরীর ১০নং ওয়ার্ড ভাটারখাল এলএসডি ঘাট (ঈদগাহ মাঠ) এলাকা থেকে হতদরিদ্রদের জন্য সরকারি বরাদ্দকৃত (দুই বস্তা) চাল উদ্ধার ও মোশারফ নামে এক জনকে। একটি সূত্র মোশারেফ তাদের লোক। হামলাকারীদের বিরুদ্ধে চলতি মাসের ৭ তারিখে বরিশাল মেট্টোপলিটন পুলিশ কমিশনারের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন স্থানীয়রা। অভিযোগের সংবাদ পাওয়ার পরই হালিম শাহ’র পরিবারের উপর হামলা চালানো হয়।

কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নুরুল ইসলাম  জানিয়েছেন, সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে বর্তমানে শান্ত রয়েছে এলাকা। ওসি  আরো জানান, এই ঘটনায় উভয়পক্ষের দুটি মামলা হয়েছে। তদন্ত প্রেক্ষিতে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এবিএন/আরিফ হোসেন/গালিব/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ
ksrm