নরসিংদীতে হাসপাতালে চাকুরীর প্রলোভনে কিশোরী ধর্ষণ : অভিযুক্ত চিকিৎসক আটক

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০১ জুন ২০১৯, ১৭:২৪

নরসিংদীতে বে-সরকারী সেবিকা পদে চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে এক কিশোরীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে এক চিকিৎসকের  (এমবিবিএস) বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় চিকিৎসক আশরাফ উদ্দিন জুলফিকার (৫০) কে আটক করেছে পুলিশ।

অভিযুক্ত চিকিৎসক আশরাফ উদ্দিন জুলফিকার গাজীপুরের হোতাপাড়ার মনিপুরের সিরাজুল ইসলামের ছেলে ও নরসিংদীর শীলমান্দি এলাকার একটি শিল্প প্রতিষ্ঠানের আবাসিক মেডিকেল অফিসার। গতকাল  বিকেলে নরসিংদী সদর থানার শিলমান্দীতে চিকিৎসকের ভাড়া করা বাড়ি থেকে ঐ কিশোরীকে উদ্ধার এবং চিকিৎসককে আটক করা হয়। পরে নরসিংদী সদর মডেল থানায় নারী নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন ওই কিশোরীর মা।

মামলা সূত্রে জানা যায়, অভিযুক্ত চিকিৎসক নরসিংদী সদর উপজেলার শিলমান্দিতে ভাড়ায় থেকে একটি সুয়েটার ফ্যাক্টরীর মেডিকেল অফিসার ছিলেন। প্রাইভেট প্র্যকটিসের জন্য ময়মনসিংহের গফরগাওয়ের চেম্বার করার সুযোগে কিশোরীটির সাথে পরিচয় হয়। কিশোরীটির লিভারের সমস্যা থাকায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ও শাহজালাল মেডিকেল হাসপাতালে চাকুরীর দেওয়ার কথা বলে এবং নার্সিং কোর্সে ভর্তি করানোর কথা বলে গত মাসের ৩১ এপ্রিল কিশোরীটিকে শীলমান্দি তার ভাড়া করা বাসায় নিয়ে আসে।

 গত ৪মে থেকে চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন সময় একাধিকবার ধর্ষণ করে ওই চিকিৎসক। সেই সাথে ঘটনাটি কারো সাথে প্রকাশ না করার জন্য বিভিন্ন হুমকিও দেয়া হয়। গতকাল শুক্রবার এলাকার স্থানীয় লোকজন বিষয়টি বুঝতে পেরে চিকিৎসককে আটকের পরে শেখেরচর ফাড়িঁর পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তাদের উদ্ধার করে নরসিংদী মডেল থানায় নিয়ে আসে।

নরসিংদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সৈয়দুজ্জামান বলেন, এই ঘটনায় কিশোরীর মা বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা করেছে। অভিযুক্ত চিকিৎসক আশরাফ উদ্দিন জুলফিকাকে আটকের পর আইনী পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। কিশোরীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য আজ দুপুরে নরসিংদী সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
 

এবিএন/সুমন রায়/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ