চিতলমারীতে পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তাদের গাফিলতীর কারণে ৩ বছরেও সরেনি ঝুঁকিপূর্ণ খুঁটি

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৩ জুলাই ২০১৯, ১৫:০৮

বাগেরহাটের চিতলমারীতে পল্লী বিদ্যুৎ কর্তাদের গাফিলতীর কারণে লিখিত আবেদনের ৩ বছর পরও বসতঘরের মধ্যের খুঁটি সরেনি। ফলে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের ১৫ সদস্যর জীবন চরম ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। 

এই ঘটনায় ওই মুক্তিযোদ্ধা বাগেরহাট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিতে কয়েক দফা লিখিত আবেদন ও ১১ হাজার ২১ টাকা জমা দিয়েও কোন প্রতিকার পাননি। 

আজ মঙ্গলবার দুপুরে স্থানীয় সাংবাদিকদের এমনটা জানিয়েছেন চিতলমারী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার শেখ মুজিবর রহমান।

মুক্তিযোদ্ধা শেখ মুজিবর রহমান আরও জানান উপজেলার আড়–য়াবর্নী গ্রামে তার দ্বিতল ভবন রয়েছে। ওই ভবনের মধ্যে বিদ্যুতের একটি খুঁটি পড়েছে। সেই খুটি দিয়ে আশেপারে কয়েকটি বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ গেছে। তার পরিবারে ৪-৫ জন ছোট্ট শিশুসহ ১৫ জন সদস্য রয়েছে। ছাদে বিদ্যুতের তার ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ার কারণে পরিবারের ১৫ সদস্যর জীবন বর্তমানে চরম ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। 

এ ঘটনায় তিনি ৩ বছর আগে বাগেরহাট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিতে একটি লিখিত আবেদন ও রশিদের মাধ্যমে ১১ হাজার ২১ টাকা জমা দিয়েছিলেন। কয়েক মাস আগেও তিনি পুনরায় একটি লিখিত আবেদন করেছেন। কিন্তু অদ্যবধি কোন প্রতিকার পাননি। 

এ ব্যাপারে চিতলমারী পল্লী বিদ্যুৎ এরিয়া অফিসের জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার লক্ষণ কুমার মজুমদার জানান এ বিষয়ে তার কোন কিছু জানা নেই। 

চিতলমারী পল্লী বিদ্যুৎ এরিয়া অফিসের দায়িত্বপ্রাপ্ত এজিএম মো. তরিকুল ইসলাম জানান আবেদনটি জমা হওয়ার পর বাগেরহাটে পাঠানো হয়েছে। বৈদ্যুতিক খুঁটি সরানোর বিষয়টি প্রক্রীয়াধীন রয়েছে। 

তবে বাগেরহাট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি বোর্ডের সভাপতি মো. আলমগীর হোসেন জানান একজন ডিজাইন স্টেকারকে নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। বিষয়টি দ্রুত সমাধান করার চেষ্ঠা চলছে।   

এবিএন/এসএস সাগর/গালিব/জসিম

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ