ভোলায় ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ 

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১২ আগস্ট ২০১৯, ১০:২০

ভোলা সদর উপজেলার চরসামাইয়া ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের চর ছিফলী গ্রামে ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে হাত মুখ বেঁধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এই সময় ধর্ষক ঐ ছাত্রীকে রক্তাক্ত অবস্থায় রেখে পালিয়ে যায়। 

পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে প্রথমে ভোলা সদর হাসপাতালে পরে রাতেই আশংঙ্কা জনক অবস্থায় বরিশাল শেরে বাংলা হাসপাতালে রেফার করে। গতকাল রবিবার রাতে স্থানীয় ২ লম্পট এই ঘটনা ঘটায়। এই ঘটনায় পুলিশ ধর্ষকদের ধরার চেষ্টা করছে। 

মেয়ের বাবা জানান, আমার মেয়েকে প্রতিবেশী লিজা বেগম হাতে মেহেদী দেওয়ার নামে  ডেকে নিলে হঠাৎ মুখ চেপে ধরে কাচারীর মধ্যে নিয়ে একই এলাকার কালাম মিস্ত্রির ছেলে ভোলা জজ কোর্টের মহুরী মঞ্জু ও মাদকসেবী আলামিন ধর্ষণ করে। আমার মেয়েকে অজ্ঞান করে রক্তাক্ত অবস্থায় রেখে যায়। পরে আমার স্ত্রী দেখে চিৎকার দিলে তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছি। 

চরসামাইয়া ইউনিয়নের ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন মাতব্বর খবর পেয়ে সদর হাসপাতালে গিয়ে সাংবাদিকদের জানান বিষয়টি খুব দুঃখজনক। অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির  ব্যবস্থা করবো। আমাদের গ্রাম পুলিশরা ওদের ধরার অভিযানে নেমেছেন। 

সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ডাক্তার মোমিনুল ইসলাম জানান, খাদিজাকে ধর্ষণ করার আলামত পাওয়া গেছে। তার জরায়ু দিয়ে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। বর্তমানে তার অবস্থা আশংকাজনক তাই আমরা তাকে বরিশালে রেফার করেছি। 

ভোলা সদর থানার ওসি ছগির মিঞা জানান খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছে আসামী গ্রেতারের চেষ্টা চলছে।

 

এবিএন/আদিল হোসেন তপু/জসিম/বিদ্যুৎ

এই বিভাগের আরো সংবাদ