আনন্দ-বেদনার ঈদ রোহিঙ্গাদের

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১২ আগস্ট ২০১৯, ১২:৪৯

টেকনাফের বিভিন্ন শিবির ঘুরে দেখা গেছে, শিশুরা সকাল থেকেই নিজের পরিস্কার জামা-কাপড় পরে সেজেগুজে শিবিরের রাস্তায় হৈহুল্লোড় আর আনন্দে মেতে উঠেছে। রোহিঙ্গাদের অনেককে নতুন জামা, গেঞ্জি, লুঙ্গি, পাঞ্জাবি, মাথায় টুপি ও চশমা পরে দলবেঁধে শিবিরে ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে। কিশোরীরাও নিজেদের সাজানোর চেষ্টা করেছেন মনের মতো করে। আবার অনেক শিশুকে খালি গায়ে দেখা গেছে। তবে বড়দের ঈদ উৎসবের আমেজ নেই, তাদের মনে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নিষ্ঠুর নির্যাতনে প্রাণ হারানো স্বজনদের দুঃসহ স্মৃতি! 

আনন্দ-বেদনার মাঝে ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেছে কক্সবাজারে আশ্রিত রোহিঙ্গারা। রোহিঙ্গা শিবিরে ঈদের নামাজ আদায়ের পর কান্নায় ভেঙে পড়েন ইমাম ও মুসল্লিরা। মোনাজাতে অংশ নেওয়া মুসলিমরা নির্যাতনের বিচার চেয়ে ও নিজ দেশ মিয়ানমারে মর্যাদার সঙ্গে নিরাপদ প্রত্যাবাসনের জন্য আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনা করেন।

এছাড়াও তাদের আশ্রয় দেওয়ার জন্য বাংলাদেশের সরকার-জনগণের প্রতি ধন্যবাদ জানান। সোমবার সকাল সাড়ে ৭ টার দিকে টেকনাফ-উখিয়ার ৩০টির বেশি রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরে এসব জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে ২৫ আগস্টে কোরবানি ঈদের মাত্র কয়েকদিন আগে রাখাইনের ৩০টি নিরাপত্তা চৌকিতে একযোগে হামলার ঘটনা ঘটে। প্রতিক্রিয়ায় মিয়ানমার সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের ওপর ব্যাপক নিপীড়ন শুরু করে। ফলে প্রাণ বাঁচাতে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেয়। পুরনোসহ উখিয়া-টেকনাফের ৩০টি শিবিরে ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা অবস্থান করছে। তবে জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী, উখিয়া-টেকনাফে আশ্রিত রোহিঙ্গার সংখ্যা ১১ লাখ ৮৫ হাজার ৫৫৭। তাদের মধ্যে নারী ও শিশুর সংখ্যাই বেশি। 

কক্সবাজারের ৩০টি রোহিঙ্গা শিবিরে এক হাজার ২০০টি মসজিদ ও ৬৪২টি নুরানী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ টেকনাফের নিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৭টি, অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ২৬২টি ও ২৮টি নুরানী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব মসজিদ ও নুরানী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঈদের জামায়াত আদায় করেছেন মুসলিম রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীরা। কিছু কিছু জায়গায় খোলা আকাশের নিচে নামাজ পড়তে দেখা গেছে। 

মোহাম্মদ মুজিব উল্লাহ, বয়স আনুমানিক ৭০। মংডুর এটিলিয়া পাড়া থেকে বাংলাদেশে এসেছেন। তিনি বলেন, আগস্ট মাস রোহিঙ্গাদের জন্যা কালো, এ মাসে খুব কাছ থেকে দেখেছি মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নৃশংস রূপ। প্রায় দুই বছর আগে ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে চোখের সামনেই সেনারা আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছে আমার তিন ছেলেকে। গুলি করে হত্যা করা হয় দুই ভাইয়ের ছেলেদের। ঘরবাড়ি আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হয়। লুট করা হয় সহায় সম্বল। ঈদের দিন আসলে ওদের কথা মনে পড়ে। সেই দুঃসহ স্মৃতির কথা বলতে বলতেই কেঁদে ওঠেন তিনি। 

টেকনাফের জাদিমুড়া শিবিরের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ একরাম বলেন, আমরা আর কতদিন এ দেশের বোঝা হয়ে থাকব? জানি মিয়ানমার সেনারা হাজারো রোহিঙ্গা সদস্যকে হত্যা করেছে। তারপরও মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের স্বদেশ, তাই আমরা ফিরতে চাই। তবে রোহিঙ্গাদের যেসব শর্ত রয়েছে, তা মানলেই সবাই ফিরে যাব। 

 এবিএন/নির্মল/জসিম/এনকে

এই বিভাগের আরো সংবাদ