রাণীশংকৈলে জেলা ইজতেমা সম্পন্ন করতে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দেওয়া হবে : পুলিশ সুপার

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২১ আগস্ট ২০১৯, ১৭:৫৪

ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে তাবলীগ জামাতের ৩ দিন ব্যাপী (২২-২৪ আগষ্ট) জেলা ইজতেমা সম্পন্ন করতে মাঠে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে মাওলানা সা’দ কান্ধলবী পন্থিরা। এ জেলা ইজতেমা সম্পন্ন করতে আজ বুধবার বিকালে থানা চত্তরে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষে পুলিশ বাহিনীকে দিক নির্দেশনা ও স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে প্রেস ব্রিফিং করেন ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান (পিপিএম সেবা)।
 
এসময় পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান (পিপিএম সেবা) বলেন, জেলা ইজতেমা সম্পন্ন করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দেওয়া হবে। এতে পুলিশ বাহিনীর যা করণীয় তার বিন্দু মাত্র কার্পণ্যতা করা হবে না। আজ থেকে গুরুত্বপূর্ণ এলাকা গুলোতে চেক পোষ্ট বসানো হবে এবং ছাত্রাবাস ও ম্যাসগুলো তল্লাশি করা হবে। পুলিশ বাহিনীকে তিনি আরো বলেন, যেখানে যতটুকু বল প্রয়োগ করা দরকার সেখানে ততটুকু বল প্রয়োগ করবেন। প্রথমে লাঠি চার্জ এরপর গ্যাস গান, সটগান এরপরেও নিজেরা অথবা অন্যেরা আক্রান্ত হলে ফায়ার করার নির্দেশনা দেন। আর এ ইজতেমা সুন্দর ভাবে সম্পন্ন করতে পারলে পুলিশ বাহিনীকে পুরস্কিৃত করা হবে।

মাওলানা জুবায়েদ পন্থিদের উদ্দেশ্যে তিনি আরো বলেন, ইজতেমা প্রতিহত করার ঘোষনাটি বে-আইনী যারা এ ঘোষনাটি দিয়েছেন তারা বে-আইনী কাজ করেছেন। আমরা এ বে-আইনী কাজটি করতে দিতে পারি না। আশা করি আপনাদের এ ঘোষনাটি প্রত্যাহার করবেন।

সাংবাদিকদের ব্রিফিং কালে তিনি আরো বলেন পুলিশ সাংবাদিক ভাই ভাই এ ইজতেমা সম্পন্ন করতে আমাদের সহযোগিতা করবেন। এসময় আরো বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল আসাদ মোঃ মাহাফুজুল ইসলাম।

 উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোসফেকুর রহমান, আবু তাহের মোঃ আব্দুল্লাহ, সামিউল, চাইলাউ মারমা, সহকারি পুলিশ সুপার মোস্তাফিজ, থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুল মান্নান, তদন্ত খাইরুল আনাম ডন, সহ রাণীশংকৈল প্রেস ক্লাবের কর্মরত সাংবাদিক ও পুলিশ সদস্যরা ।

উল্লেখ্য এদিকে জেলা ইজতেমা ঠেকাতে ঠাকুরগাঁও জেলা ওলামায়ে কেরাম, তাবলীগের সাথী ও সর্বস্তরের তাওহীদির ব্যানারে গতকাল মঙ্গলবার মানববন্ধন করেছে জুবায়ের পন্থিরা।
 

এবিএন/মোবারক আলী/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ