দিনাজপুর প্রেসক্লাবে এসিডে ঝোলসে যাওয়া মহিলার সাংবাদিক সম্মেলন

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৯:৫০

দিনাজপুর প্রেসক্লাব নিমতলা কার্যালয়ে দূর্বিত্তদের ছোড়া এসিডে ঝোলসে যাওয়া মোছাঃ জোহর নেগার (৩৫), স্বামী মোঃ আবেদ আলী, সাং-রাজপুর, থানা-কাহারোল, জেলা, দিনাজপুর আজ সোমবার সাংবাদিক সম্মেলনে দূর্বিত্ত কর্তৃক এসিডে আক্রান্ত নির্যাতিত নারী  মুমুর্ষ অবস্থায় এসিড নিক্ষেপকারীদের নাক উল্লেখ করে বলেন, আসামী-১ গনি মিয়া, ২ আহের আলী,  উভয়ের পিতা-মৃতধ রজ্জব আলী, ৩. মোঃ তোজাম্মেল, পিতা-ইব্রাহিম, সর্ব সাং-রাগপুর, থানা-কাহারোল, জেলা-দিনাজপুর। উক্ত ব্যক্তিরা আদালতে দায়ের করা একাধিক মামলার আসামী।

উক্ত আসামীরা আমী ও আমার পরিবারকে মেরে ফেলার অসৎ উদ্দেশ্যে ঘটনার দিন আমার সমস্ত শরীর এসিড দ্বারা ঝোলসাইয়া দেয়। গত ১২/০৮/২০১৯ইং তারিখ হইতে ১৭/০৮/২০১৯ইং তারিখ পর্যন্ত আমি এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেহ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলাম। আমার চিকিৎসার অবনতি হইলে কর্মরত ডাক্তার আমাকে রংপুর ও ঢাকায় রেফার্ড করে। আমি ঢাকায় গিয়ে এসিড সার্ভাইজ ফাউন্ডে চিকিৎসা নেই ১৬/০৯/২০১৯ইং তারিখ পর্যন্ত। আমি কিছুটা সুস্থ্য হয়ে ছাড়পত্র নিয়ে কাহারোল থানার এসআই সুবাশ চন্দ্রকে ফোন করে দিনাজপুরে আসি।

 এসআই সুবাশ চন্দ্র আমি ও আমার পরিবর বর্গসহ স্বাক্ষীগণদের জবানবন্দী গ্রহণ করিয়া সাক্ষ নেন। আমি ও আমার পরিবার বাড়িতে যাওয়ার অনুমতি প্রার্থনা করিলে তিনি বলেন, আমারই নিরাপত্তা নাই। ঘটনার প্রায় ১ মাস পূর্বে হতে আমি আমার স্বামী একটি জিডি নিয়ে এস আই একরামুল, এসআই মানিক ও এসআই মহিদুল এর নিকট প্রায় ৭ দিন ঘুরিয়া কেউই আমার জিডি গ্রহণ করেনি।

 উক্ত মামলার আসামীগণ অত্যন্ত দূর্দান্ত ও প্রভাবশালী হওয়ায় থানা কর্তৃপক্ষ এবং এলাকাবাসীর প্রধানদের একাত্ততার মাধ্যমে আমার ন্যায় বিচার হতে বঞ্চিত হচ্ছি। এসিড নিক্ষেপের বিষয়ে কাহারোল থানায় একটি মামলা দায়ের করি যাহার মামলা নং-০৫, তারিখ-২০-০৮-২০১৯, ধারা এসিড অপরাধ দমন আইন-(২০২)এর -৫ (ক) ও ৫ (খ)। ৬৭/২০৯ (কাহারোল) উক্ত মামলার  আগামী ধার্য তারিখ-০৩-১০-২০১৯ইং উক্ত মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণ সিআর নং-৩৩/১৯, ধারা-৪২০/২০৬ দাঃবিঃ এর আসামীর ফজলুলের নিকট ১,৭৫,০০০ টাকা কর্য স্বরুপ পাওনা থাকায় উক্ত বিষয়ে আপোশ মিমাংসা লক্ষে বসলে মিমাংসা হয় নি।

 আসামীগণ দূর্গান্ত ও প্রভাবশালী হওয়ায় গত ০৩/০৭/১৯ তারিখে রাত্রি ৮.৩০ মিঃ আমার স্বামীকে কাহারোল সোনালী ব্যাংক এর সামনে হইতে কতিপয় সন্ত্রাসী আমার স্বামীকে ফারুক চেয়ারম্যানের বাসায় তুলে নিয়ে যায়। সেখানে ৩০০ টাকার ৩টি ফাকা স্টাম্পে স্বাক্ষর নেয়। এই মর্মে সিআর এর ১১৭/১৯ নং মামলা যাহার ধারা/১৪৩/১৪৯/৩৬৫/২২৩/২৪৬/৫৬(।।)/৩৪ ধারায় ৮ জনকে আসামী করি।

 গত কুরবানী উপলক্ষে আমার মেয়ে মৌসুমী আক্তার ১০/৮/১৯ইং তারিখে বাসায় ঈদ করার জন্য আসে। ১গনি মিয়া, ২. আহের আলী, ৩. মোজাম্মেল, পিতা-ইব্রাহিম, সাং-রাগপুর, থানা-কাহারোল, দিনাজপুর সকলে মিলে গত ১১/৮/২০১৯ইং তারিখে দিবাগত রাতে আমার বাড়িতে এসে ফিল্মি স্টাইলে আমার গায়ে এসিড ঢেলে আমাকে ঝোলশিয়ে দেয় এবং হুমকি দেয় আমার মেয়েকে পেট্রোল ঢেলে পুড়িয়ে দেবে। তাই আমি আজ চরম নিরাপত্তা হীনতায় ভূগছি। আমার বাড়ী ছেড়ে আমি দিনাজপুরে এসে আমার আত্মিয় বাড়ীর অবস্থান করছি।

তাই আমি আপনার লিখুনীর মাধ্যমে আমার উপর এসিড নিক্ষেপের ঘটনা তদন্ত সাপেক্ষে আসামীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি এবং সেই সাথে গণজাপ্রতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পুলিশের আইজিপি, জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম, জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের আসু হস্তক্ষেপ কনাম করছি আমার ও আমার পরিবারের জীবন রক্ষার জন্য।


এবিএন/আফজাল হোসেন/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ