মুন্সিগঞ্জে ‘রহস্যময় জ্বরে’ একই পরিবারের ২ জনের মৃত্যু

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৭ জানুয়ারি ২০২০, ১৯:৫৯

লৌহজং উপজেলার জসলদিয়া গ্রামে ‘রহস্যময় জ্বরে’ চাচি ও ভাতিজার মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- ওই গ্রামের মীর জুয়েলের স্ত্রী শামীমা বেগম (৩৪) এবং মীর সোহেলের ছেলে মীর আবদুর রহমান (৩)।

শামীমার দেবর মীর শিবলু জানান, তার ভাবি রবিবার সকালে জ্বর অনুভব করেন এবং পরে তা কিছুটা বেড়ে যায়। একই সাথে শরীরের বিভিন্ন অংশে চাকার মতো রক্তের দাগ দেখা যায়। মাত্র ঘণ্টা খানেকের মধ্যে সকাল ৮টার দিকে তার মৃত্যু হয়। এরপর রাতে ভাতিজা রহমানও জ্বর অনুভব করে ঘণ্টা খানেকের মধ্যে ২টার দিকে মারা যায়। তার শরীরেও রক্তের দাগ ছিল।

জেলা প্রশাসক মো. মনিরুজ্জামান তালুকদার জানান, দুজনের মৃত্যুর কারণ জানতে ঘটনাস্থলে চিকিৎসক দল পাঠানো হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শামীম আহমেদ বলেন, বিষয়টি সিভিল সার্জনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকতাদের জানানো হয়েছে।

লৌহজং উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মু. রাশেদুজ্জামান বেলা সোয়া ১২টার দিকে ঘটনাস্থল থেকে বলেন, ‘এখানে চিকিৎসক এসেছেন, খোঁজখবর করা হচ্ছে। চিকিৎসক মৃতদের পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলছেন। মৃতদের রোগের লক্ষণ করোনাভাইরাসের মতো নয়।’

মৃতদের মধ্যে শামীমার দাফন সম্পন্ন হয়েছে। তবে শিশু রহমানের মৃতদেহটি চিকিৎসকরা পরীক্ষা করে দেখছেন।

চীনে করোনাভাইরাসে কমপক্ষে ৮০ জন মারা যাওয়ায় জসলদিয়া গ্রামে জ্বরে দুজনের মৃত্যুর ঘটনায় স্থানীয়দের মাঝে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। 

মীর শিবলু জানান, তাদের এলাকার কাছাকাছি রয়েছে পদ্মা সেতু প্রকল্প। এছাড়া জসলদিয়া গ্রামেই আছে জসলদিয়া পানি শোষণাগার প্রকল্প। এ প্রকল্পগুলোতে চীনা নাগরিকরা কর্মরত আছেন। আশপাশেও চীনা নাগরিকদের বসবাস ও বিচরণ রয়েছে। তাই তিনি আশঙ্কা করছেন করোনাভাইরাস কারণেও দুজনের মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে। তবে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসে কেউ মারা যাননি।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ