নাগরপুরে শিব কাঠুরীতে শিব পূজা উদযাপন

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৯:১৬

টাংগাইলের নাগরপুরে উদযাপিত হলো সনাতন ধর্মালম্বীদের শিব পূজা (শিব রাত্রি)। নাগরপুর শিব পূজা উদযাপন পরিষদের আয়োজনে ফাল্গুন মাস শিব চতুদর্শীতে নাগরপুর কাঠুরীতে অবস্থিত  ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন শিব মন্দিরে উদযাপিত হল শিব পূজা। শিব রাত্রি উপলক্ষে শিবের মাথায় জল ঢালতে পূন্যার্থীদের ঢল নামে।

জানা যায়, শিব পূজা হিন্দুদের মধ্যে প্রাচীন কাল থেকেই ব্যাপক ভাবে প্রচলিত। এই রীতি সম্পর্কে অনেক ভুল ধারনা রয়ে গেছে। শিব পূজা কেবল ভারত আর শ্রীলংকায় সীমা বদ্ধ নয়। শিব মন্দিরের গর্ভগৃহে শিব অবস্থান। শিবের থাকে তিনটি অংশ। সব চেয়ে নিচের চারমুখী অংশটি থাকে মাটির নীচে। তার উপরের অংশিটি আট মুখী, যা বেদীমুল হিসেবে কাজ করে। আর একবারে উপরে অর্ধবৃত্তাকার অংশটি পূজিত হয়। এই অংশটির উচ্চতা হয় এর পরিধির এক তৃতীয়াংশ। এই তিনটি অংশের সব চেয়ে নীচের অংশটি ব্রহ্মা তাঁর উপরের অংশটি বিষ্ণু ও একেবারে উপরের অংশটি শিবকে প্রতীকায়ীত করে। বেদীমুলে একটি লম্বাকৃতি অংশ রাখা হয়, যা শিবের মাথায় ঢালা জল বেরিয়ে যেতে সাহায্য করে।



শিব রাত্রি সম্পর্কে স্বামী বিবেকানন্দ বলেছেন: স্বামীজী “ অথর্ববেদ” এর শ্লোক উদ্বৃত করে শিব কে আদি ব্রহ্মের স্বরুপ হিসেবে ব্যাখ্যা করেছেন। তাঁর মতে, আদি ও অন্তহীন ব্রহ্মের প্রতীক হল শিব লিঙ্গ।

বাবু মলয় কুমার সরকার বলেন, প্রায় ৮৬ বছর আগে ততকালীন জমিদারদের আয়োজনে নাগরপুরে এই পূজা উদযাপন করা হতো। তারই ধারাবাহিকতায় এই পূজা উদযাপন করা হচ্ছে। তবে প্রাচীনতম শিব মন্দির হিসেবে পরিচিত এই মন্দিরটি আজ জরাজীর্ণ। তাই তারা এটি সংস্কারের জন্য সরকারের কাছে জোর দাবী জানান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বাবু দয়াল ঘোষ, রনজিৎ ঘোষ, সাবেক ইউপি সদস্য আজিজুর রহমান তুষ্ট, গনেশ ঘোষ, হরিপদ ঘোষ সহ উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে  আগত পূজারিবৃন্দ।
 

এবিএন/মাসুদ মিঠু/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ