সুন্দরগঞ্জে চরাঞ্চলে চুরি-ডাকাতি, নিয়ন্ত্রণে পুলিশের ওয়াচ টাওয়ার

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৫ জুলাই ২০২০, ১৪:১৭

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের চরাঞ্চলে বন্যা মৌসুমে ডাকাতি বেড়ে যায়। ডাকাতরা জামালপুর জেলাসহ বিভিন্ন স্থান থেকে নৌকাযোগে ওই এলাকায় ডাকাতি করতে আসে।

ওই এলাকায় ডাকাতির উদ্দেশ্যে কোন দুষ্কৃতকারী বা কেউ ঢুকে যেন একত্রিত হতে না পারে এবং চরাঞ্চলে চুরি-ডাকাতি ও মাদক নিয়ন্ত্রণে পুলিশ বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে।

তারই ধারাবাহিকতায় চুরি-ডাকাতি ও মাদক নিয়ন্ত্রণে গাইবান্ধা পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলামের সার্বিক তত্ত্বাবধানে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে উপজেলার কাপাসিয়া ইউনিয়নের চরে ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণ করা হচ্ছে।

গতকাল ৪ জুলাই (শনিবার) উপজেলার কাপাসিয়া ইউনিয়নের ভাটি কাপাসিয়া কাজিয়ার চর দারুল আরকান এবতেদায়ী মাদ্রাসা মাঠে চরাঞ্চলে চুরি-ডাকাতি ও মাদক নিয়ন্ত্রণে ওয়াচ টাওয়ার উদ্বোধন এবং জনসচেতনতামূলক মতবিনিমিয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন গাইবান্ধা পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার বলেন, ‘মাদকের সাথে যারা জড়িত তারা বিভিন্ন নামি-দামি লোকদের পরিচয় দিয়ে কথা বলতে পারে আপনাদের সাথে। এতে ভয় করবেন না আপনারা। কারণ তাদের বড় পরিচয় হলো তারা অপরাধী। তাদের গ্রেফতার করবার জন্য পুলিশের কাছে এটাই যথেষ্ট’।

তিনি আরো বলেন, ‘বন্যা মৌসুমে এলাকায় ডাকাতি বেড়ে যায়। ডাকাতরা জামালপুর জেলা সহ বিভিন্ন স্থান থেকে নৌকাযোগে এই এলাকায় ডাকাতি করতে আসে। এই এলাকায় ডাকাতির উদ্দেশ্যে কোন দুষ্কৃতকারী বা কেউ ঢুকে যেন একত্রিত হতে না পারে সে কারণেই এই চরে ওয়াচ টাওয়ার স্থাপন করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে ডাকাতদের গতিবিধি লক্ষ্য করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এলাকায় কেউ চুরি, ডাকাতি করলে দোষীদের নিজ বাসা থেকে ধরে এনে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। পুলিশ জনবান্ধব। মানুষের সুখে দুখে পুলিশ কাজ করে থাকে। নিজেকে সচেতন হতে হবে। বাল্য বিবাহ বন্ধ করতে হবে। সন্তানরা কে কোথায় যায় সে বিষয়ে অভিভাবকদের খেয়াল রাখতে হবে। প্রতিকূলতার মধ্যে বেড়ে উঠলে সে সন্তানরা শক্তিশালী হয়’।

কাপাসিয়া ইউনিয়ন পরিষদ আয়োজিত মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন কাপাসিয়া ইউপি চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন সরকার।

এতে অন্যান্যদের মধ্যে সুন্দরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল্লাহিল জামান, থানার তদন্ত অফিসার বুলবুল ইসলাম, পুলিশ পরিদর্শক মোখলেছুর রহমান প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।

সভায় ইউনিয়নের বিবাহ ও তালাক রেজিস্টারসহ ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যবৃন্দ এবং বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

শেষে নদী ভাঙ্গন এলকা পরিদর্শন এবং শিশুদের মাঝে খাবার হিসেবে বিস্কুট, পাউরুটি ও ডিম বিতরন করেন পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম।

এবিএন/আরিফ উদ্দিন/গালিব/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ