শরণখোলায় অবৈধ স্থাপনায় করাত কল মালিকে জেল জরিমানা

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:২৬

বাগেরহাটের শরণখোলায় আইন অমান্য করে সুন্দরবন সংলগ্ন গ্রামে করাত কল পরিচালনার অপরাধে নুরুল হক আকন নামর এক ব্যক্তিকে জেলহাজতে পাঠিয়েছে আদালত।

বাগেরহাট সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-১ (বন আদালত) এর বিচারক সমির মল্লিক তার জামিন না মঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলা সূত্র জানা গেছে, শরণখােলা উপজেলার বকুলতলা গ্রামের আ. রশিদ আকনের পুত্র নুরুল হক আকন ওরফে নুরুল হক আড়ৎদার বন আইন অমান্য করে বন সংলগ্ন এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে করাত কল স্থাপন করে কাঠ চেরাই করে আসছিল।

বিষয়টি প্রশাসন ও বন বিভাগের নজরে আসলে গত ৩১ /১২/২০১৯ তারিখ শরণখােলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরদার মােস্তফা শাহিন ও সহকারী বন সংরক্ষক জয়নাল আবেদীন মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে জরিমানা আদায় করে করাত কল বন্ধ করে দেন।

এ ব্যাপারে নুরুল হক অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিট্রেট আদালতে লাইসেন্সবিহীন আর করাত কল পরিচালনা করবেন না মর্মে মুসলেকা প্রদান করেন। কিন্ত তিনি পরবর্তীতে আবারো বন সংলগ্ন ওই গ্রামে অবৈধভাবে দুইটি করাত কল স্থাপন করে কাঠ চেরাই করে আসছেন।

এভাবে আইন অমান্য করার কারনে বন বিভাগ সি-(বন) ২০/২০২০ এবং সি-(বন) ২১/২০২০ মামলা রজু করে। ওই মামলায় সােমবার আদালতে হাজির হলে তার জামিন না মঞ্জুর করা হয়।

এ ব্যাপারে শরণখােলা রেঞ্জ কর্মকর্তা (এসিএফ) মােঃ জয়নাল আবেদীন জানান, সুন্দরবন থেকে ১০ কিলামিটারের মধ্যে কোন প্রকার মিল, কল-কারখানা স্থাপন করা সম্পূর্ণ বে-আইনী।

কিন্ত নুরুল হক আড়ৎদার মাত্র ৩/৪ কিলামিটারের মধ্যে অবৈধভাবে করাত কল স্থাপন  করেছেন। তাই বন আইনে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরদার মােস্তফা শাহিন জানান, মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে করাত কলগুলো বন্ধ করে দেয়ার পরও আইন অমান্য করে তিনি করাত কল চালিয়ে আসছিলেন। তাই বন বিভাগের মামলায় তার জামিন না মঞ্জুর হয়েছে। অবৈধ করাত কলের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এবিএন/নজরুল ইসলাম/গালিব/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ