'চীন-পাকিস্তানের বন্ধুত্বে ভাঙন ধরানোর শক্তি কারোরই নেই'

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০১৯, ১৮:৪৭

কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানকে সব ধরনের সহযোগিতা দেয়ার অঙ্গীকার করেছেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। এ বিষয়ে বেইজিং গভীর দৃষ্টি রাখছে বলেও জানান তিনি। তবে কাশ্মীরকে অভ্যন্তরীণ ইস্যু উল্লেখ করে এ নিয়ে কারো নাক গলানোর অধিকার নেই বলে মন্তব্য ভারতের। এ অবস্থায় কাশ্মীরের ওপর থেকে অবরোধ তুলে নেয়ার বিষয়টিকে 'প্রহসন' বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। এর মধ্যেই সীমান্তে অস্ত্র বিরতি লঙ্ঘনের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ তুলেছে নয়াদিল্লি-ইসলামাবাদ।

দু'দিনের চীন সফরে বুধবার দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে বৈঠক করেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। বেইজিংয়ে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে কোনো রাখঢাক না রেখেই কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের পাশে থাকার ঘোষণা দেন চীনা প্রেসিডেন্ট। তবে স্মরণ করিয়ে দেন, ভারত-পাকিস্তান আলোচনাও জরুরি।

শি জিনপিং বলেন, 'চীন ও পাকিস্তান একে অন্যের সহযোগী। দু'দেশের বন্ধুত্ব শক্তপোক্ত ও দৃঢ়। এতে ভাঙন ধরানোর শক্তি কারোরই নেই। যেকোনো পরিস্থিতিতেই আমরা একে অন্যের পাশে আছি এবং থাকবো। বেইজিংকে সবসময় পাশে পাবে ইসলামাবাদ।' এদিকে ইমরান খান বলেন, 'চীনের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। আমাদের বিপদের বন্ধু তারা। অনেক কঠিন সময়ে বেইজিং ইসলামাবাদকে সহযোগিতা দিয়েছে। অর্থনীতির ভঙ্গুর দশার মধ্যে বেইজিংকে পাশে পেয়েছি। যা কখনও ভোলার মতো নয়।' 

চীনা প্রেসিডেন্টের মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছে ভারত। কাশ্মীরকে অভ্যন্তরীণ ইস্যু উল্লেখ করে এ নিয়ে তৃতীয় পক্ষের নাক গলানোর অধিকার নেই বলে জানায় নয়াদিল্লি। এদিকে ভারতে শুক্র ও শনিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠক করবেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। সেখানেও গুরুত্ব পাবে কাশ্মীর সংকট।

এ অবস্থায় বুধবার ফের কাশ্মীরের পুঞ্চ জেলায় অস্ত্রবিরতি লঙ্ঘন কোরে পাকিস্তান গুলি চালিয়েছে বলে দাবি করেছে ভারত। যদিও ইসলামাবাদের দাবি, নয়াদিল্লিই আগে হামলা চালিয়েছে। এ জন্য তারা পাকিস্তানে নিযুক্ত ভারতীয় ডেপুটি হাইকমিশনারকে ইতোমধ্যে সতর্কও করেছে। দুই মাসেরও বেশি সময় পর কাশ্মীর থেকে অবরোধ তুলে নেয়া হলো। পর্যটকদের যাতায়াতের উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত কার্যত 'প্রহসন' বলে দাবি করেছেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, এখনও ইন্টারনেট সেবা পুরোপুরি সচল নয়। অনেকটাই থমথমে অঞ্চলটির পরিবেশ।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ