৭৯টি প্রশ্নের জবাব না পেলে ৫৯টি চীনা অ্যাপ স্থায়ীভাবে নিষিদ্ধ করবে ভারত

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১১ জুলাই ২০২০, ১১:১৭

বিপত্তি যেন পিছু ছাড়ছে না ভারতে বন্ধ হওয়া ৫৯টি চীনা অ্যাপের। ভারত সরকার ‘ডিজিটাল স্ট্রাইক’ করে একধাক্কায় এতগুলো অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছে। এবার তাদের জন্য ৭৯টি প্রশ্নের তালিকা তৈরি করেছে দেশটির ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি মন্ত্রণালয়। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সেই প্রশ্নের জবাব দিতে না পারলে টিকটক-সহ ৫৯টি চীনা অ্যাপকে এ দেশে চিরকালের মতো নিষিদ্ধ করে দেওয়া হবে। এদিকে ভারত-চীন উত্তেজনার ফলে এইচডিএফসি-র শেয়ার ছেড়ে দিচ্ছে পিপলস ব্যাংক অব চায়না। গত মার্চের শেষে এইচডিএফসি ব্যাঙ্কে চিনের পিপলস ব্যাঙ্ক অব চায়নার শেয়ার ছিল ১.০১ শতাংশ। কিন্তু সেই শেয়ারের বেশকিছুটা খোলা বাজারে বিক্রি করে দিয়েছে চীনের ওই সংস্থা।

বিভিন্ন নিরাপত্তা সংস্থাগুলি অভিযোগ করেছিল, একাধিক অ্যাপ ভারতীয়দের তথ্য চুরি করছে। তাদের গোপনীয়তা ভঙ্গ করছে। এরপরই তদন্তে নামে কেন্দ্র সরকার। চীনের এই অ্যাপগুলি দেশের নিরাপত্তায় বিঘ্ন ঘটাচ্ছে। এমনকী, এই অ্যাপগুলির প্রভাবে ভারতের সার্বভৌমত্বও প্রশ্নের মুখে পড়ছে। এই কারণ দেখিয়ে ৫৯টি চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছিল মোদি সরকার। সেখানেই তদন্ত প্রক্রিয়া শেষ করে ফেলেনি কেন্দ্র সরকার। বরং বিশ্বের একাধিক নিরাপত্তা সংস্থা ও দেশের গোয়েন্দা রিপোর্ট পাওয়ার পরই ৫৯টি অ্যাপকে ফের নোটিস ধরিয়েছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রণালয়। বলা হয়েছে, ৭৯টি প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দিতে হবে। ২২ জুলাইয়ের মধ্যে সেই প্রশ্নের উত্তর দিতে বলা হয়েছে। উত্তর না দিলে অ্যাপগুলিকে চিরকালের মতো নিষিদ্ধ করা হবে বলেও খবর পাওয়া গেছে।

অন্যদিকে, গত আর্থিক বছরে ধীরে ধীরে এইচডিএফসি-তে শেয়ার বাড়িয়েছিল চিন। গত এপ্রিলে ভারতীয় সংস্থায় বিদেশি বিনিয়োগ নিয়ে কড়াকড়ি করে মোদী সরকার। কারণ আশঙ্কা করা হয়েছিল, করোনা মহামারীর সুযোগে বিদেশিরা কম দামে ভারতীয় সংস্থাগুলি কিনে নেওয়ার চেষ্টা করবে। এরপরই সেই শেয়ার বিক্রি করে দেওয়ার পথে হাঁটতে শুরু করে চীন। জুনের শেষে চীনের ব্যাঙ্কটি অন্তত এক শতাংশ শেয়ার বেচে ফেলেছে বলে জানা গেছে। আগামী দিনে চীনের সেন্ট্রাল ব্যাঙ্ক আদৌ হাউসিং ডেভলপমেন্ট ফিনান্স কর্পোরেশনে কোনও শেয়ার রাখবে কিনা, তা নিয়েও রয়েছে সন্দেহ।

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

এই বিভাগের আরো সংবাদ