কারা হাসপাতালের ১১৭ শূন্য পদে চিকিৎসক নিয়োগের নির্দেশ

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৯ জানুয়ারি ২০২০, ১৭:৪৭

কোনো ধরনের বিলম্ব ছাড়া সারাদেশের কারা হাসপাতালগুলোতে শূন্য পদে ১১৭ জন চিকিৎসক নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে দ্রুত নিয়োগ দিয়ে এক মাসের মধ্যে প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করতে বলা হয়েছে।

বুধবার এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

রিটকারী আইনজীবী মো. জে আর খান রবিন বলেন, হাইকোর্টের আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে কারা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিলেন, কারা হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসকের অনুমোদিত পদ ১৪১টি। এর মধ্যে ৯ জন চিকিৎসক কারা হাসপাতালগুলোতে কর্মরত ছিলেন। পরবর্তীতে আরও ১৫ জন চিকিৎসক সংযুক্ত করা হয়। বাকি ১১৭টি শূন্য পদে দ্রুত চিকিৎসক নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছেন।

এর আগে গত ১৪ জানুয়ারি সারাদেশে জরুরি ভিত্তিতে কারা হাসপাতালে কতজন চিকিৎসক প্রয়োজন তা কারা কর্তৃপক্ষকে ২৭ জানুয়ারির মধ্যে জানাতে বলা হয়। সে অনুযায়ী আজ কারা কর্তৃপক্ষ ১১৭ টি শূন্য পদ রয়েছে জানিয়ে প্রতিবেদন দাখিল করে।

কারাগারে চিকিৎসকের স্বল্পতা নিয়ে গত বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টে রিট করেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী জে আর খান রবিন। এ রিটের প্রেক্ষিতে গত বছরের ২৩ জুন এক আদেশে আদালত সারাদেশের সব কারাগারে ধারণ ক্ষমতা, বন্দি ও চিকিৎসকের সংখ্যা এবং চিকিৎসকের শূন্য পদের তালিকা দাখিলের নির্দেশ দিয়ে রুল জারি করেন।

রুলে কারাগারে আইনগত অধিকার নিশ্চিতে মানসম্মত থাকার জায়গা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদের নিস্ক্রিয়তা কেন বেআইনি হবে না এবং বন্দিদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিতে কারা-চিকিৎসকের শূন্যপদে নিয়োগ দিতে নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে তা জানতে চেয়েছেন আদালত।

বিবাদী আইন সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব (সুরক্ষা বিভাগ), স্বাস্থ্য সচিব, সমাজ কল্যাণ সচিব, জনপ্রশাসন সচিব, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও কারা মহাপরিদর্শককে এ রুলের জবাব দাখিল করতে বলা হয়।

ওই নির্দেশ অনুসারে গত ৫ নভেম্বর কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম মোস্তফা কামাল পাশার পক্ষে ডেপুটি জেলার মুমিনুল ইসলাম হাইকোর্টে একটি প্রতিবেদন দাখিল করেন।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, কারা চিকিৎসকের অনুমোদিত পদের সংখ্যা ১৪১টি। এর বিপরীতে কর্মরত রয়েছে ৯ জন। স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ থেকে প্রেষণে বদলির মাধ্যমে কারা-চিকিৎসক নিয়োগ দেয়ার বিধান রয়েছে। তাই সরাসরি বা চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের সুযোগ নেই।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ