করোনার মাঝে যেভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখবেন উচ্চ রক্তচাপ

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৩ মে ২০২০, ০৯:৩৬

বিশ্বব্যাপী দাপিয়ে বেড়াচ্ছে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস। এই মরণব্যাধির সবচেয়ে ঝুঁকিতে রয়েছেন বয়স্ক ও দীর্ঘমেয়াদী রোগে আক্রান্তরা। আর উচ্চ রক্তচাপ এমনই এক রোগ যা কোনো লক্ষ্মণ ছাড়াই একে একে বিকল করে দিতে পারে হার্ট, ব্রেন, কিডনি, চোখসহ শরীরের নানা অঙ্গপ্রত্যঙ্গ। রক্তচাপ বেড়ে গেলে মাথা, ঘাড় ব্যথা, মাথা ঘোরা, মেজাজ হারিয়ে বা কখনো দুর্বল বোধ করতে পারেন। সামান্য পরিশ্রমে শ্বাসের কষ্ট ও বুক ধড়ফড় করে। আবার নিজ থেকে তা ঠিকও হয়ে যায়।

বেশির ভাগ মানুষই এই ধরনের উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসকের কাছে যেতে চান না। লাগাতার এই ভাবে অনিয়ন্ত্রিত রক্তচাপ নিয়ে জীবনযাপন করলে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ একে একে বিকল হতে শুরু করে।

হঠাৎ মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ, অর্থাৎ স্ট্রোকের জন্যও দায়ী রক্তচাপ। এছাড়া লাগাতার হাই ব্লাড প্রেশারের কারণে কিডনি বিকল ও চোখের রেটিনা নষ্ট হয়ে যাওয়ার ঝুঁকি থাকে। এছাড়া করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে এদের ফুসফুসের অবস্থা মারাত্মক হওয়ার ঝুঁকি ভীষণভাবে বেড়ে যায়। লকডাউনে বাড়িতে থাকার সময় অনেকে প্রেশার কমে গিয়েছে ভেবে ওষুধ খাওয়া বন্ধ করে দেবেন না। মেনে চলতে হবে আরও কিছু নিয়ম-

* বাড়িতে থাকলেও নিয়ম করে ৪৫ মিনিট থেকে এক ঘণ্টা ঘাম ঝরানোর হাঁটাচলা আর ব্রিদিং এক্সারসাইজ এবং প্রাণায়াম করতে হবে। গোসল-খাওয়ার মতোই এক্সারসাইজকে জীবনের অংশ করে নিলে সুস্থ থাকবেন।

* সোডিয়াম রক্তচাপ বাড়িয়ে দেয়। আবার সোডিয়ামের অভাবেও আচমকা স্ট্রোক হতে পারে। প্রতি দিন সব মিলিয়ে ৫ গ্রামের বেশি লবণ খাওয়া উচিত নয়। চানাচুর, চিপসসহ প্রিজারভেটিভ দেওয়া খাবারে লবণ থাকে, তাই এ সব খাবেন না।

* পাকা কলা, কমলা, বিনস, মসুর ডাল, পালং শাক, মিষ্টি ইত্যাদিতে প্রচুর পটাশিয়াম থাকে। নিয়মিত এসব খেলে প্রেশার নিয়ন্ত্রণে থাকবে। তবে ওষুধ খেতে ভুললে চলবে না।

* লকডাউনের কারণে বাড়িতে থাকতে হচ্ছে বলে অনেকেরই ঘুমের সমস্যা হচ্ছে। ছাদে, বারান্দায় বা ঘরের মধ্যে হাঁটাচলা করলে ঘুমানোর সমস্যা হবে না। প্রেশার নিয়ন্ত্রণে রেখে করোনার মোকাবিলা করুন।

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ