শবেবরাত উপলক্ষে ঢাকার প্রধান সড়ক ও পাড়া-মহল্লায় নজরদারি

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৯ এপ্রিল ২০২০, ১৮:২০

ঢাকায় বেড়েই চলেছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা।  এদিকে আজ পবিত্র শবেবরাতের রাতে ইসলামিক ফাউন্ডেশের নির্দেশ মেনে ইবাদত-বন্দেগী করার অনুরোধ করেছেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘নামাজ ঘরে থকে আদায় করা যায়।  আমরা সব মসজিদসহ বিভিন্ন স্থানে সতর্ক থাকবো। কোথাও মুসল্লি জড়ো হতে দেব না। এজন্য পুলিশের সবগুলো ইউনিটকে কঠোরভাবে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

নগরবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এই রাতে অনেকেই আতশবাজি ফোটান।  কিন্তু সে ধরনের কিছু করা হলে দেশের প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  রাস্তায় ঘোরাঘুরি না করে বাসায় নামাজ আদায় করা ভালো। ’

পুলিশ জানিয়েছে, মানুষ জড়ো হলে করোনাভাইরাসে দ্রুত সংক্রমতি হতে পারে। এ কারণে রাস্তাঘাট যেন ফাাঁকা থাকে, সে পরিকল্পনা করা হয়েছে। রাতে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে তল্লাশি চৌকি স্থাপনের পাশাপাশি টহল দেবেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। এছাড়া পোশাকধারী পুলিশের পাশাপাশি থাকবে সাদা পোশাকের পুলিশও।  যেখানে জনসমাগম বেশি থাকবে সেখানে নিরাপত্তা জোরদার করা হবে। জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমসহ সব মসজিদে সশস্ত্র পাহারায় থাকবে পুলিশ।  বড় বড় মসজিদে অতিরিক্ত পুলিশ, র‌্যাব মোতায়েন থাকবে।  এছাড়া পাড়া মহল্লায়, অলিগলিতে থানা পুলিশেকে আগের চেয়ে বেশি টহল বাড়ানোর নির্দেশ আছে।

এদিকে ডিএমপির গণমাধ্যম শাখা থেকে জানানো হয়েছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে শুক্রবার ভোর ৬টা পর্যন্ত কোনও ধরনের আতশবাজি, পটকাবাজি, বিস্ফোরক ও দূষণীয় দ্রব্য বহন করা যাবে না। এসব কাজে যারা জড়িত থাকবেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সারা দেশে একই ব্যবস্থা নেওয়া হবে উল্লেখ করে পুলিশের এআইজি মিডিয়া সোহেল রানা বলেন, ‘রাতটি মাসুলমানদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।  কিন্তু মনে রাখতে হবে আমরা একটি ক্রান্তিকাল পার করছি। করোনাভাইরাস মোকাবিলা করাই এখন আমাদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।  এ কারণে মুসল্লিরা যেন মসজিদ বা রাস্তায় বের না হয়ে ঘরে নামাজ আদায় করেন সে অনুরোধ থাকবে।’

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

এই বিভাগের আরো সংবাদ