নির্বাচন এলেই শুধু সরব হয় বিএনপি

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১০:১৭

ফাইল ছবি
দেশে যেকোনো নির্বাচন এলেই শুধু সরব হয় বিএনপি। দলের পক্ষ থেকে সভা-সমাবেশ, মিছিল-মিটিংয়ের মাধ্যমে লোক দেখানো জনসমাগমের আয়োজন করা হয়। তবে দিন শেষে কাজের কাজ কিছুই হয় না। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তা ব্যর্থতায় রূপ নেয়।

আর লোকদেখানো এতো আয়োজনের ফলে ভোটের দিন বিএনপির তেমন কাউকেই মাঠে পাওয়া যায় না। দিনভর প্রার্থী এক কেন্দ্র থেকে অপর কেন্দ্র ঘুরে বেড়ান। নির্বাচনে সুষ্ঠু-সুন্দর পরিবেশে ভোটগ্রহণ চললেও তাদের প্রার্থীর অভিযোগের শেষ থাকে না। কখনো দুপুরে, কখনো বা শেষ বিকেলে ভোটের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেন তারা। 

দীর্ঘ সময় ধরে বিএনপির ভোটের রাজনীতির প্রায়ই এমনই চিত্র চোখে পড়ছে। সদ্য সমাপ্ত পাবনা-৪, নওগাঁ-৬ ও ঢাকা-৫ আসনের উপ-নির্বাচনসহ বেশ কয়েকটি নির্বাচনেও ঘটেছে একই কাণ্ড।

এসব নির্বাচনকে বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, নির্বাচনের আগে বিএনপি ব্যাপক গণসংযোগ চালায়। প্রচারণায় লোক সমাগমও ঘটে। বিচ্ছিন্ন দুই-একটি ঘটনা ছাড়া নির্বাচনের পরিবেশও থাকে শান্তিপূর্ণ। তবে বিএনপি এসব নির্বাচন বারবারই নিজেদের অস্তিত্ব জানান দিতে ব্যর্থ হয়। উপায়ন্ত না পেয়ে শেষ পর্যন্ত ভোটে অনিয়মের অভিযোগে এনে ফলাফল প্রত্যাখ্যানের ঘোষণা দেয়।

এ ধরনের লোকদেখানো নির্বাচনী কর্মকাণ্ড সম্পর্কে জানতে চাইলে সদ্য দায়িত্বপ্রাপ্ত বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, এটা মোটেও ঠিক নয়। বিএনপি সব সময় সাংগঠনিক তৎপরতা অব্যাহত রখেছে। নির্বাচনের আগে-পরে কোনো কথা নয়। তবুও নির্বাচনে দলের ভরাডুবি হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে দলের হাইকমান্ড ভাবছে। 

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এ নির্বাচন থেকে আমরা ভালো কিছু প্রত্যাশা করি না। জনগণের কাছে যাওয়ার জন্য ভোটে অংশগ্রহণ ভালো একটি মাধ্যম। আমরা আপাতত সেই সুযোগটাই নিচ্ছি।

এদিকে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বিএনপি সাংগঠনিকভাবে কী করল, কী করল না- এসব বলে লাভ নেই। তবে সাংগঠনিকভাবে বিএনপিকে আরো শক্তিশালী করা প্রয়োজন।

 

এবিএন/ইমরান/জসিম/এসই 
 

এই বিভাগের আরো সংবাদ