সিন্ডিকেটকে সুযোগ দিতে জনগণের দৃষ্টি চৌমুহনী-হাজীগঞ্জ-পীরগঞ্জে: রিজভী

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২০ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৪২

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির পেছনে সরকারদলীয় সিন্ডিকেট দায়ী। প্রধানমন্ত্রী মনে করেন, চাল, লবণ, পেঁয়াজ ও ডালের দাম বাড়াবেন আর তার সিন্ডিকেটরা পকেট ফোলাবে। পকেট ফুলিয়ে মোটা-সোটা হতে থাকবে। আর এর মধ্য দিয়ে সরকারের ময়ূর সিংহাসন টিকে থাকবে- এটিই হচ্ছে শেখ হাসিনার অভিপ্রায়।

রুহুল কবির রিজভী বুধবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে আয়োজিত মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে এসব কথা বলেন।
 
তিনি বলেন, সয়াবিন তেলের দাম এক লাফে সাত টাকা বেড়েছে। ১৫৩ টাকা থেকে বেড়ে ১৬০ টাকা হয়েছে। ওবায়দুল কাদের বলছেন, মনিটরিং করছেন শেখ হাসিনা। আর এ মনিটরিং করতে গিয়ে চাল-ডালের দাম সব হু হু করে আকাশ ছুঁই ছুঁই করছে। এটিই হচ্ছে শেখ হাসিনার রাজনৈতিক অপকৌশল।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, সিন্ডিকেটকে সুযোগ করে দেওয়ার জন্য তিনি জনগণের দৃষ্টি চৌমুহনী, হাজীগঞ্জ, চট্টগ্রাম ও পীরগঞ্জে  নিয়ে রেখেছেন। আর ওবায়দুল কাদেরসহ আরও যারা মন্ত্রী রয়েছেন তাদেরকে তিনি বলে রেখেছেন, তোমরা এ নিয়ে জনগণকে ব্যস্ত রাখো। তারা সে কাজ অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে করছেন।

কুমিল্লার পূজামণ্ডপে হামলার ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কুমিল্লাবাসী এবং হিন্দু সম্প্রদায়ও বলছে, তারা নিরাপত্তার জন্য কুমিল্লা প্রশাসনকে বলেছিল। কিন্তু প্রশাসন যথাসময়ে সাড়া দেয়নি, অনেক দেরি করে এসেছে, এ নিয়ে পত্রপত্রিকায়ও লেখালেখি হচ্ছে। আজ একের পর এক বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে, ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। 

বিএনপির এ নেতা বলেন, ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছেন। রংপুর পুড়ছে, হাজীগঞ্জ পুড়ছে, নোয়াখালীতে আক্রমণ হচ্ছে, আর শেখ হাসিনা শুধু দেখছেন। ওবায়দুল কাদেরের সুরে প্রধানমন্ত্রী আবার বলেন, আমি না দেখলে কে দেখবে। একটি ভয়ংকর মিথ্যার ওপর তারা বসবাস করছে। অন্যকে বলেছেন মিথ্যেবাদী।

রিজভী বলেন, আজ গুম-খুনের রাজনীতিতে, আজ মিথ্যাচারের রাজনীতিতে আমরা প্রত্যেকে যদি প্রশিক্ষিত হই, আমার মনে হয় সরকার বেশি দিন টিকতে পারবে না। আদর্শের কাছে, ন্যায়ের কাছে, ইনসাফের কাছে, সুশাসনের কাছে, নীতির কাছে কখনোই জুলুমকারীরা টিকে থাকতে পারে না। কখনোই পারবে না। আমার মনে হয় আজ এ সরকার একটি গভীর নীলনকশা বাস্তবায়ন করছে।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ
ksrm