দুর্নীতির জন্য সব অর্জন ম্লান হয় : প্রধানমন্ত্রী

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৫:৫০ | আপডেট : ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৮:২৫

প্রজাতন্ত্রের মালিক জনগণের সেবায় আইন ও প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তাদের কাজ করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জনগণের জন্য আমাদের কাজ করতে হবে। প্রতিটি কর্মচারীকে চিন্তা করতে হবে, কতটুকু সেবা আমি দিতে পারলাম। নিজের পরিবারের সদস্যদের মতোই, দেশের মানুষের প্রতিও দায়িত্ব পালন করতে হবে। ঘুষ-দুর্নীতির বিষয়ে সাবধান হতে হবে। কারণ দুর্নীতির জন্য সব অর্জন ম্লান হয়।

আজ বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) আইন ও প্রশাসন কোর্সের সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে নবীন কর্মকর্তাদের প্রতি তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, যারাই মাঠে কাজ করবেন, তাদের সাফল্য অবশ্যই দৃশমান হবে। কারণ আমি জানি একজন অফিসার ইচ্ছে করলে একটা জেলা, একটা ইউনিয়ন বা একটা উপজেলার চেহারা পাল্টে দিতে পারেন। পরিবেশ পাল্টে দিতে পারেন। উন্নয়ন দৃশ্যমান করে দিতে পারেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, অফিসারদের সেই ধরনের ইনোভেটিভ আইডিয়া থাকতে হবে, পরিকল্পনা থাকতে হবে। চিন্তা চেতনা থাকতে হবে, দেশের প্রতি ভালবাসা থাকতে হবে। দেশের প্রতি কর্তব্যবোধ থাকতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হিসেবে আপনারা যখন কর্মজীবনে প্রবেশ করেন, তখন মাথায় থাকতে হবে জনগণের প্রতি আপনাদের দায়িত্ব রয়েছে। দেশের কল্যাণে মানুষের কল্যাণে নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ করবেন।

তিনি বলেন, এটা মনে রাখতে হবে এই দেশ আমাদের। প্রজন্মের পর প্রজন্ম আসবে। ভবিষ্যতের প্রজন্মের জন্য আমি কী করে যাচ্ছি, সেটাও মাথায় থাকতে হবে।

প্রজাতন্ত্রের নবীন কর্মচারীদের উদ্দেশে সরকারপ্রধান বলেন, প্রতিটি পদক্ষেপ নিতে গেলে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হতে হবে, মিতব্যয়ী হতে হবে, পরিকল্পিতভাবে কাজ করতে হবে। যাতে উন্নয়নটা স্থায়ী হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, একটা কথা মনে রাখতে হবে আমাদের, দেশের মালিক তো জনগণ। সংবিধানে আছে প্রজাতন্ত্রের মালিক জনগণ। সেই জনগণের জন্য আমাদের সব দায়িত্ব বোধ। সে অনুযায়ী কাজ করতে হবে।

দেশের অগ্রগতির কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের উন্নয়ন প্রকল্পের ৯০ ভাগই আমরা নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়ন করি। সেক্ষেত্রে আমি বলব নবীন কর্মকর্তা হিসেবে এই যে কষ্ট করে অর্জনটা করলাম। কারা ট্যাক্স দেয়, আমাদের দেশে মানুষ। কারা খাটে, আমার গরীব কৃষক, শ্রমিক, সাধারণ মানুষ, তারাই তো খাটে।

সরকারপ্রধান বলেন, তাদের এই অর্থগুলো যথাযথভাবে দেশের উন্নয়নে যেন ব্যয় হয় এবং উন্নয়নটা যেন পরিকল্পিতভাবে হয়, মিতব্যয়ের সঙ্গে আমরা যেন আরও বেশি উন্নয়ন করতে পারি। সেদিকে বিশেষভাবে দৃষ্টি দেবার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।

শেখ হাসিনা বলেন, যে কোনো কাজে সততাটা কিন্তু সবচেয়ে বড় শক্তি। সততার শক্তি অনেক বড়।

আত্মবিশ্বাস ও আত্মমর্যাদা নিয়ে চলার সঙ্গে আত্মশুদ্ধ করার ওপর গুরুত্বারোপ করে নবীন কর্মকর্তাদের প্রধানমন্ত্রী বলেন, সবসময় একটা আত্মবিশ্বাস নিয়ে চলতে হবে। জাতির পিতা বলেছেন, প্রত্যেকটা মানুষের জীবনে যেমন আত্মমর্যাদাবোধ থাকবে, তেমনি আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে এবং আত্মশুদ্ধিও করতে হবে।

স্বাধীনতার সুফল দেশের প্রতিটি ঘরে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে সরকার কাজ করছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছি। ২০২৪ সালের মধ্যে আমাদের অর্জনগুলো ধরে রাখতে হবে। আর ২০৪১ সালের মধ্যে আমরা উন্নত দেশে উন্নীত হতে চাই। ২০৭১ এবং শতবর্ষের ডেল্টাপ্ল্যান বাস্তবায়ন করে আগামী প্রজন্মকে উন্নত ও বাসযোগ্য একটি রাষ্ট্র উপহার দিতে কাজ চলছে।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমির রেক্টর কাজী রওশন আক্তার।

প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে প্রশিক্ষণ গ্রহণকারীদের হাতে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমিতে ১১৩, ১১৪ ও ১১৫তম আইন ও প্রশাসন কোর্সের সনদ তুলে দেন।

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ