বিশাল অঙ্কের পারিশ্রমিকে কাতারের কোচ হচ্ছেন জিদান!

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০২ জুন ২০১৮, ১৯:৩৪

ঢাকা, ০২ জুন, এবিনিউজ : দুই দিন আগে রিয়াল মাদ্রিদের কোচের পদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়ে ফুটবল দুনিয়াকে চমকে দিয়েছেন জিনেদিন জিদান। এবার তার চেয়েও আরও বড় চমক উপহার দিলেন মিশরের ধনকুবের নাগুইব শুয়রিস। মিশরের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ীর দাবি, বিশাল অঙ্কের পারিশ্রমিকে কাতার জাতীয় দলের কোচের দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন জিদান!

মিশরের টেলিকম মিডিয়া অ্যান্ড টেকনোলোজি হোল্ডিংয়ের কর্ণধার নাগুইব ফুটবল বিশ্বকে চমকে দেওয়া এই খবরটা দিয়েছেন টুইটারের মাধ্যমে। টুইটে তিনি দাবি করেছেন, ২০২২ ঘরের মাঠের বিশ্বকাপ পর্ন্ত জিদানকে কোচ করতে যাচ্ছে কাতার। মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে জিদানের বার্ষিক বেতন নাকি ৫০ মিলিয়ন ইউরো। মানে কোচ জিদানের পারিশ্রমিক হবে বর্তমানে বিশ্বের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া ফুটবলার লিওনেল মেসির সমান!

প্রতি বছর ৫০ মিলিয়ন করে ৪ বছরে জিদান পারিশ্রমিক পাবেন ২০০ মিলিয়ন ইউরো। নাগুইব শুয়রিসের এই দাবি সত্যি হলে, পাল্টে যাবে জিদানের কথা। কারণ, গত বৃস্পতিবার আচমকা রিয়ালের কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর সময় জিদান স্পষ্ট করেই বলেছেন, শিগগিরই তিনি আবার কোচের দায়িত্ব নিচ্ছেন না। অন্তত একটি বছর ‘ম্বেচ্ছা-অবসর’ যাপন করবেন।

এরপর ভাববেন, কোনো ক্লাব বা জাতীয় দলের কোচের দায়িত্ব নেবেন কিনা। কিন্তু জিদানের সেই দাবির বিপরীতে গিয়ে নাগুইব শুয়রিস দাবি টুইট করেছেন, ‘২০২২ বিশ্বকাপ পর্ন্ত কাতার জাতীয় দলের কোচের দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন জিনেদিন জিদান। বার্ষিক ৫০ মিলিয়ন ইউরো পারিশ্রমিকে ৪ বছরের জন্য দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন…। টাকা কথা বলে?’

নাগুইব শুয়রিসের দাবি সত্যিই যদি সত্যি হয়, আসলেই যদি কাতারের কোচ হন জিদান, তাহলে মিথ্যে প্রমাণিত হবে জাভি হার্নান্দেজকে জড়িয়ে সেই গুঞ্জনও। বার্সেলোনার সাবেক বর্ষিয়ান মিডফিল্ডার বর্তমানে কাতারী ক্লাব আল সাদে খেলছেন।

গুঞ্জন আছে, শিগগিরই আল সাদ থেকে অবসর নিতে যাচ্ছেন জাভি। বুট জোড়া আনুষ্ঠানিকভাবে তুলে রাখার পর তিনি কাতার জাতীয় দলের কোচের দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন বলেই খবর। তাকেও নাকি ২০২২ বিশ্বকাপ পর্ন্তই কোচ করার কথা ভাবছে কাতার ফুটবল ফেডারেশন।

কিন্তু সেই গুঞ্জনের মধ্যেই নতুন বোমা ফাটালেন ফুটবলের বাইরের একজন। ধণাঢ্য ব্যবসায়ী হিসেবে নাগুইব শুয়রিসের বিশেষ সুনাম আছে। অনেকেরই বিশ্বাস, তিনি আন্দাসে ঢিল ছোঁড়ার কথা নয়। তলেতলে এমন কিছু চলতেও পারে।

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ