প্লেয়ার্স প্রোফাইল: নেইমার

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৩ জুন ২০১৮, ১২:০৯

ঢাকা, ১৩ জুন, এবিনিউজ : নেইমার দ্য স্যান্টোস জুনিয়র (ব্রাজিল, ফরোয়ার্ড)

জন্ম: ৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৯২ (২৬বছর)
উচ্চতা: ৫ ফুট ৯ ইঞ্চি
ক্লাব: প্যারিশ সেন্ট জার্মান
জার্সি নম্বর: ১০

ক্লাব ক্যারিয়ার:
১৯৯৯-২০০৩ পর্যন্ত পোর্তুগিজ স্যান্টিস্তার যুব দলে ফুটবলে খেলেছেন নেইমার ৷ ২০০৩ থেকে ২০০৯ স্যান্টোসের জুনিয়র দলে কাটিয়েছেন তিনি৷ ব্রাজিলের সবচেয়ে দামী তারকা ফুটবলারের সিনিয়র ফুটবল কেরিয়ার শুরু হয় ২০০৯ সালে স্যান্টোসের হয়েই৷ ২০০৯ থেকে ২০১৩ এই ক্লাবে কাটিয়েছেন নেইমার৷ এই সময় ১০২টি ম্যাচে ৫৪ টি গোল করেন ব্রাজিলের ব্ল্যাক হর্স৷ ২০১৩-১৭ বার্সেলোনাতে কাটান নেইমার৷ স্প্যানিশ ফুটবল জায়েন্টদের হয়ে ১২৩ ম্যাচে ৬৮ গোল রয়েছে ব্রাজিলের বর্তমান দলের সবচেয়ে প্রতিভাবান এই ফুটবলারের৷ ২০১৭ সালে ২২২ মিলিয়ন ডলারের মত বড় মূল্যে প্যারিস সেন্ট-জার্মান দলে নাম লেখান এই ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড৷ ক্লাবটির হয়ে এখনো অবধি ২০ ম্যাচে ১৯টি গোল রয়েছে নেইমারের৷

আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার:
২০০৯-২০১৬ ব্রাজিলের বয়সভিত্তিক জাতীয় দলের হয়ে ফুটবল খেলেছেন নেইমার৷ অনূর্ধ্ব-১৭ দলের হয়ে ৩ ম্যাচে ১টি, অনূর্ধ্ব-২০ দলের হয়ে ৭ ম্যাচে ৯টি, অনূর্ধ্ব-২৩ দলের হয়ে ১৪ ম্যাচে ৮টি, গোল করছেন নেইমার জুনিয়র৷

ব্রাজিল জাতীয় দল (সিনিয়র):
২০১০ থেকে এ ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের আগে পর্যন্ত ব্রাজিলের জাতীয় দলের জার্সি গায়ে ৮৫ ম্যাচে ৫৫টি গোল করেছেন এন টেন৷ ১০ আগাস্ট ২০১০ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ম্যাচে ব্রাজিলের জাতীয় দলের জার্সি গায়ে আন্তর্জাতিক ডেবিউ করেন নেইমার

২০১৩ কনফেডারেশন কাপ:
জাপানের বিরুদ্ধে ম্যাচে প্রথম গোল৷ ৩-০ ম্যাচটি জেতে ব্রাজিল৷ পরের মেক্সিকো এবং ইতালির বিরুদ্ধের ম্যাচেও ধারাবাহিকভাবে গোল করেন এই ব্রাজিলিয় তারকা ফরোয়ার্ড এবং ফাইনালে স্পেনের বিরুদ্ধেও একটি গোল করেন নেইমার৷ ২০১৩ কনফেডারেশন কাপ জেতে ব্রাজিল৷ অনবদ্য পারফর্ম করার জন্য টুর্নামেন্টটিতে গোল্ডেন বল জেতেন নেইমার৷

ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ (২০১৪):
৫ ম্যাচে ৪ গোল৷ জয়-৪, ড্র-১, হার-০

অলিম্পিক (২০১২, ২০১৬ ):
লন্ডন মিশরের বিরুদ্ধে ম্যাচে প্রথম অলিম্পিক গোল করেন নেইমার৷ এই ২০১২ অলিম্পিকেই চিনের বিরুদ্ধে প্রথম আন্তর্জাতিক হ্যাটট্রিক করেন এন টেন৷

পুরস্কার:
২০১১ সালে ফিফার ক্লাব বিশ্বকাপে ব্রোঞ্জ বল জেতেন নেইমার৷ ব্রাজিলের এই তারকা ফরোয়ার্ড ২০১১ সালে ফিফার পুসকাস পুরস্কার জেতেন৷ ফিফা কনফেডারেশন কাপ ২০১৩ সালে গোল্ডেন বল এবং ব্রোঞ্জ বুট জেতেন এন টেন৷ ২০১৪ সালের ফুটবল বিশ্বকাপে ব্রোঞ্জ বুটের দখল নেন নেইমার৷

এবিএন/ফরিদুজ্জামান/জসিম/এফডি

এই বিভাগের আরো সংবাদ