আজ শুরু ইংল্যান্ড-পাকিস্তান প্রথম টেস্ট

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৫ আগস্ট ২০২০, ১৬:৫৫

দীর্ঘ বিরতির পর ব্যস্ত সময় পার করছে ইংল্যান্ড। আজ শুরু পাকিস্তানের বিপক্ষে থ্রি লায়নদের তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্রাফোর্ডে বাংলাদেশ সময় বিকাল ৪টায় শুরু হবে ম্যাচটি।

মহামারীর মধ্যেও টেস্ট ক্রিকেটকে মাঠে ফেরানোর পর আয়ারল্যান্ডকে নিয়ে ওয়ানডে ফরম্যাটকেও ২২ গজে ফিরিয়েছে ইংল্যান্ড। গতকাল শেষ হয়েছে দু’দলের ওয়ানডে সিরিজ। তবে এর কোনো প্রভাব পড়বে না পাকিস্তান সিরিজে।

ওয়ানডে স্কোয়াডের কোন সদস্য টেস্ট দলে না থাকায় নেই ঝামেলা। ইংলিশদের টেস্ট দল বেশ ছন্দে আছে। দিন ১৫ আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ইংলিশদের সাদা পোশাকের দুই জয় এখনো ভক্তদের চোখে লেগে আছে। বুধবারের ম্যাচে টপ ক্লাস সিমার আছে দুই দলেই। তবে স্পিন বোংলি এগিয়েই থাকবে পাকিস্তান।

ব্যাটিংয়ে যদি ইংল্যান্ডের জেসন রয় আর জো রুটকে নিয়ে ভাবতে হয় তবে পাকিস্তানের বাবর আজম আর আজহার আলী হতে পারেন প্রতিপক্ষের দু:শ্চিন্তার কারণ। তার পরও হোম গ্রাউন্ডের অ্যাডভানটেজ আর চলতি ফর্ম অবস্যই এগিয়ে রাখবে ইংল্যান্ডকে।

প্রথম টেস্টের আগে পাকিস্তানের অধিনায়ক বলেন, ‘ইংল্যান্ডের কন্ডিশনে খেলাটা সবসময়ই কঠিন। কিন্তু গত একমাসে এখানকার কন্ডিশনের সাথে আমরা দারুণভাবে মানিয়ে নিয়েছি। এখন মাঠের পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নেয়াটা আসল লক্ষ্য। সকলে যার যার দায়িত্ব পালন করলে আমরা সাফল্য পাবো। গত দু’সিরিজের সাফল্য আমাদের সাহস যোগাচ্ছে। তবে সদ্যই সিরিজ জিতে দারুণ আত্মবিশ্বাসী ইংল্যান্ড। তাই প্রতিপক্ষ শক্তভাবেই নিচ্ছি আমরা। নিজেদের সেরা পারফরম্যান্স দিতে আমরা প্রস্তুত।’

তবে পাকিস্তানকে শক্ত প্রতিপক্ষ ভাবছেন ইংল্যান্ডের অধিনায়ক জো রুট। তিনি বলেন, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজের চেয়ে পাকিস্তান শক্তিশালী দল। কারণ, পাকিস্তানের বোলিং লাইন-আপ বিশ্বমানের। গেল দু’সফরে তারা বোলারদের হাত ধরে সাফল্য পেয়েছে। তাদের ব্যাটসম্যানরা ভালো মানের। তাই সিরিজে দারুণ লড়াই হবে।’

২০১৬ ও ২০১৮ সালে সর্বশেষ দু’সফরে সিরিজ হারেনি পাকিস্তান। ২০১৬ সালে ৪ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ ২-২ ও ২০১৮ সালে দু’ম্যাচের টেস্ট সিরিজ ১-১ সমতায় শেষ করেছিলো তারা। এখন পর্যন্ত ৮৩ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে ইংল্যান্ড ও পাকিস্তান। ইংলিশদের জয় ২৫, পাকিস্তানের জয় ২১টি। ড্র হয়েছে ৩৭টি ম্যাচ।

ইংল্যান্ডের মাটিতে পাকিস্তান সর্বশেষ টেস্ট সিরিজ জিতেছে ১৯৯৬ সালে। তাই পাকিস্তানের জন্য সিরিজ জয়ের বন্ধ্যাত্ব ঘোচানোর পালা।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ