গণপরিবহনের ভাড়ায় নৈরাজ্য, পদে পদে হেনস্তা

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৮ আগস্ট ২০২২, ০৯:৪৬

দেশে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার পর সরকার ও বাস মালিক পক্ষের সমন্বয়ে নির্ধারিত ভাড়া মানছে না গণপরিবহনগুলো। নতুন ভাড়া নির্ধারণ করে সরকার গতকাল রোববার প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। এই ভাড়ার তালিকা টানানোর কথা থাকলেও তা গতকাল পর্যন্ত কোনো বাসে এ তালিকা টানানো হয়নি। এতে করে বাসের চালক ও কন্ডাক্টরদের সঙ্গে যাত্রীদের বাগ্‌বিতণ্ডার পাশাপাশি অপ্রীতিকর ঘটনাও ঘটেছে।

তেলের দাম বাড়ায় গতকাল বিভিন্ন জেলায় বাস চলেছে কম। ফলে যাত্রীদের অটোরিকশা ও বাইকসহ অন্য বিকল্প খুঁজতে হয়েছে। এসব বাহনের ভাড়াও বাড়তে শুরু করেছে। এ ছাড়া অনেক স্থানে ফিলিং স্টেশনগুলোয় তেল বিক্রিও হয়েছে কম। এদিকে লঞ্চ মালিকদের সংগঠন আজ সোমবার নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ে ভাড়া বাড়ানোর দাবিতে বৈঠক করবে। সেখানে ভাড়া সমন্বয়ের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে বলে মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

তেলের দাম বাড়ায় সঙ্গে সঙ্গে গত শনিবারে বাস মালিক পক্ষের সঙ্গে সমন্বয় করে সরকার বাসভাড়া বাড়িয়েছে ১৬ থেকে ২২ শতাংশের বেশি। ঢাকার গণপরিবহনগুলোতে দেখা গেছে, নির্ধারিত ভাড়ায় যাত্রী পরিবহন না করে বাসগুলো ভাড়া আদায় করছে ইচ্ছেমতো। কোথাও ১০ টাকার ভাড়া ২০ টাকা, আবার কোথাও ৩০ টাকার ভাড়া ৫০ টাকা নেওয়া হচ্ছে। বাসগুলোর স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদও করছেন অনেক যাত্রী। এ নিয়ে বাসের কর্মীদের সঙ্গে যাত্রীদের সংঘাতের ঘটনাও ঘটছে।

রাজধানীর বিমানবন্দর এলাকায় বিকাশ পরিবহনের একটি বাসে দেখা যায়, ১০ টাকার ভাড়া ১৫ টাকা নেওয়ায় চালকের সহকারীর সঙ্গে বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন যাত্রীরা। এ সময় বাসকর্মী রাসেলকে মারধর করে বাস থেকে নামিয়ে দেন তাঁরা। ওই বাসের যাত্রী সোহেল রানা বলেন, ‘সরকার ভাড়া বাড়ানোর পরও তাদের

ক্ষুধা মেটে না। সবার লোভের বলি হচ্ছি সাধারণ যাত্রীরা। সবকিছুর দাম বাড়লেও আয় তো বাড়েনি। আমাদের সমস্যা দেখার কেউ নেই।’

যাত্রীদের অভিযোগ, ভাড়া নিয়ে বাসগুলো নিয়মকানুন তো মানছেই না, বরং যাত্রীদের হয়রানি করছে। তবে বাসের চালক এবং সহযোগীরা বলছেন, কিছু ক্ষেত্রে ভাংতি টাকা না থাকায় দুই-এক টাকা বেশি নেওয়া হচ্ছে, এ কারণেই যাত্রীরা ক্ষোভ দেখাচ্ছেন। মহাখালীতে কথা হয় আকাশ পরিবহনের সহকারী শাহেন শাহের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘২০ টাকার ভাড়া ২৫ টাকা নিচ্ছি। ৫০ টাকার ভাড়া এখন ৬০ টাকা। এক টাকা বা দুই টাকার নোট থাকে না। তাই এক টাকা বা দুই টাকা বেশি নেওয়া হয়।’ তিনি জানান, গাড়িতে এখনো ভাড়ার তালিকা প্রকাশ করা হয়নি। তাই অনেকে ভাড়া দিতে চায় না। কথা-কাটাকাটি করে।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) বলছে, নির্ধারিত ভাড়া কার্যকরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান চালাচ্ছে তারা। গতকাল রাজধানীর দূরপাল্লার বাসের বিভিন্ন কাউন্টারে এমন চিত্র দেখা গেছে। এ দিন অফিস-আদালত খোলা থাকলেও সড়কে গাড়ির চাপ ছিল আগের তুলনায় অনেক কম।

এদিকে রাজধানীর থেকে দূরপাল্লার বাসেও ইচ্ছেমতো ভাড়া নেওয়ার অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা। তাঁরা বলছেন, সরকার নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। মহাখালী বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা গেছে, বাস মালিকেরা রুট অনুসারে নতুন করে সর্বনিম্ন ৬০ থেকে ২৫০ টাকা পর্যন্ত ভাড়া বাড়িয়েছেন। এ সময় কাউন্টারগুলোতে নতুন ভাড়ার কোনো তালিকা চোখে পড়েনি। এই টার্মিনাল থেকে দেশের উত্তর ও পশ্চিমাঞ্চলে বেশ কিছু রুটে বাস চলে। এর মধ্যে ময়মনসিংহগামী এনা পরিবহন সর্বনিম্ন ৬০ টাকা ভাড়া বাড়িয়েছে। আর সর্বোচ্চ ২৫০ টাকা টিকিটের দাম বাড়িয়েছে এস আর ট্রাভেলস।

অতিরিক্ত ভাড়ার বিষয়ে কাউন্টারে দায়িত্বরত ব্যক্তিরা বলছেন, বাস মালিকেরা যেভাবে নির্দেশনা দিয়েছেন তাঁরা সেভাবে দায়িত্ব পালন করছে। এনা কাউন্টারের ম্যানেজার রবিউল ইসলাম বলেন, ‘এটি কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত। মালিকপক্ষের নির্ধারিত ভাড়ার তালিকা এখনো পাওয়া যায়নি।’

একই হাল সায়েদাবাদ ও গাবতলী বাস টার্মিনালে। সরকার ও মালিকপক্ষ মিলে ভাড়া নির্ধারণ করে দেওয়ার পরেও ভাড়া নিয়ে অনিয়ম প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, দূরপাল্লার বাসগুলোতে অনিয়ম তুলনামূলক কম। ঢাকা মহানগরীতে অনেক সময় কিছু কিছু অনিয়ম হয়। এ অনিয়ম রোধ করতে বিআরটিএর ম্যাজিস্ট্রেটসহ সমিতি কাজ করছে।

ভাড়া নিয়ে পরিবহনগুলোতে বিভিন্ন অনিয়ম নিয়ে বিআরটিএর পরিচালক মো. আজিজুল ইসলাম বলেন, গণপরিবহন যেন অতিরিক্ত ভাড়া নিতে না পারে, সে জন্য টার্মিনালগুলোতে সাতটি ভ্রাম্যমাণ আদালত কাজ করছে। আজকের মধ্যে ভাড়ার তালিকা না টানালে ভ্রাম্যমাণ আদালত ব্যবস্থা নেবে।

নতুন করে বাস ভাড়া বাড়িয়েছে নারায়ণগঞ্জ থেকে চলাচলকারী বিভিন্ন রুটে বাস। সর্বনিম্ন ১০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২০ টাকা বৃদ্ধি করেছে ঢাকা রুটে। এই সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ যাত্রীরা। তাঁরা বলছেন, এক লাফে ২০ টাকা ভাড়া বৃদ্ধি করা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

নতুন এই বাস ভাড়ার সিদ্ধান্তে ক্ষোভ প্রকাশ করে নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি রফিউর রাব্বী বলেন, ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জের দূরত্ব ১৯ কিলোমিটার। যদি মহানগর ও আন্তনগর—উভয় ক্যাটাগরি ধরে মূল্য বৃদ্ধি করে তবুও সাড়ে ৭ টাকার বেশি ভাড়া বৃদ্ধি করা সম্ভব না। কিন্তু এই পরিবহন মাফিয়ারা যাত্রীদের জিম্মি করে অযৌক্তিক ভাবে ভাড়া বাড়াচ্ছে।

সিলেট, বান্দরবান, খাগড়াছড়ি, ময়মনসিংহসহ আরও অনেক জেলা থেকে তালিকা না তৈরি করে ইচ্ছেমতো ভাড়া নেওয়ার অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা। আবার অনেক জেলায় বাস ছিল কম। যাত্রীও তুলনামূলকভাবে ছিল কম। পরিবহন শ্রমিকেরা জানিয়েছেন, তালিকা না থাকায় যাত্রীরা আগের ভাড়াই দিতে চাচ্ছেন। অনেক ক্ষেত্রে বুঝিয়ে বললে তখন অতিরিক্ত ভাড়া দিচ্ছেন।

বাসের আসনসংখ্যা কম দেখিয়ে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগে শরীয়তপুরে তিন পরিবহন মালিককে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। গতকাল জেলা বাস টার্মিনালে এক অভিযানে এ জরিমানা আদায় করা হয়। তেলের দাম বাড়ায় দিনাজপুরের ফুলবাড়ী এবং মাদারীপুর জেলার শিবচরসহ অনেক এলাকায় ফিলিং স্টেশনগুলোতে কমেছে বিক্রি। তেল কিনতে আসা মোটরসাইকেল চালকের সংখ্যা ছিল খুবই কম। অথচ স্থানীয় এ সব স্টেশনে তেলের মূল ক্রেতা মোটরসাইকেল চালকেরা। এ ছাড়া ব্যক্তিগত গাড়ির সংখ্যাও কম এসেছে তেলের জন্য।

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

এই বিভাগের আরো সংবাদ