বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যানে কলেজছাত্রীর শরীরে আগুন দিল বখাটে

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৫ আগস্ট ২০২১, ১৩:১৮ | আপডেট : ২৫ আগস্ট ২০২১, ১৩:১৯

মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলায় বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কাজল আক্তার (২৫) নামের এক কলেজছাত্রীর শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে শরিফ মিয়া (৪০) নামে এক বখাটের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ওই কলেজ ছাত্রীর শরীরের ৪০ শতাংশ পুড়ে গেছে।

সোমবার (২৩ আগস্ট) রাতে ঘিওর উপজেলার বালিয়াখোড়া এলাকায় দ্বিমুখ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত ওই ছাত্রী বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন রয়েছে। অভিযুক্ত বখাটে শরিফ একই এলাকার বাসিন্দা ও ২ সন্তানের জনক।

কাজলের কয়েকজন আত্মীয়সহ স্থানীয় ইউপি সদস্য মিরান খান বলেন, মৃত কাজী ময়নালের মেয়ে কাজল আক্তার (২৫) মানিকগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের বিএ শেষ বর্ষের ছাত্রী। কাজল একই গ্রামের বখাটে শরিফ মিয়ার মেয়েকে প্রাইভেট পড়াত। কৌশলে ছাত্রীকে প্রেমের ফাদেঁ ফেলে শরিফ। দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক থাকা অবস্থায় তাদের মাঝে সম্পর্কের আরও গভীর পর্যায়ে যায়।

কাজলের মা রেনু বেগম বলেন, এক বছর পূর্বে পারিবারিক ভাবে মেয়ের সঙ্গে মোবাইল ফোনে শিবালয় উপজেলার ফেচুয়াধারা গ্রামের সাউথ আফ্রিকা প্রবাসী সোহেল রানার সাথে বিয়ে হয়। মেয়েটির বিয়ের পর থেকে ছেলেটির অনৈতিক প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলে শরিফ তাকে নানা ভাবে উত্যক্ত করতে থাকে। স্বামী প্রবাসে থাকার কারণে কাজল তার বাবার বাড়ি থেকে পড়াশোনা চালিয়ে আসছিল।

সোমবার রাতে বাড়ির সবাই ঘুমিয়ে থাকায় কৌশলে ডেকে নিয়ে যায় বাড়ির পাশে কাঠ বাগানে। এসময় কথা কাটাকাটির এক পর্য়ায়ে বখাটে শরিফ কলেজ ছাত্রীর শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে কাজল ডাক চিৎকার দিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে শরিফ পালিয়ে যায়। মেয়েটি কাঠ বাগানের পাশেই পানিতে ঝাঁপ দেয়।

আশে পাশের লোকজন তার চিৎকার শুনে ঘুম থেকে উঠে এসে মুমুর্ষ অবস্থায় মেয়েটিকে উদ্ধার করে। মেয়েটিকে গুরুতর অবস্থায় প্রথমে স্থানীয় মুন্নু মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, পরে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর তাঁকে রাজধানী ঢাকার শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে রেফার্ড করেন। তার অবস্থা সংকটজনক বলে জানা গেছে।

ঘিওর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রিয়াজউদ্দিন আহমেদ বিপ্লব বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। মেয়ের মা থানায় মামলা দায়ের করেছে। ঢাকার হাসপাতালে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। আসামি গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এবিএন/মো: সোহেল রানা খান/গালিব/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ