কালিগঞ্জে ইউপি নির্বাচনের প্রতীক বরাদ্দ

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১২ নভেম্বর ২০২১, ২০:০০

তৃতীয় ধাপে কালিগঞ্জ উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনী মাঠে ৬৭৫ জন প্রার্থীর মধ্যে ২৭ জন প্রার্থীতা প্রত্যাহারের মধ্য দিয়ে ৬৪৮ জন প্রার্থী নিজ নিজ প্রতীক নিয়ে ভোটযুদ্ধে নির্বাচনী মাঠে নেমে পড়েছে। আজ (১২ নভেম্বর) শুক্রবার সকাল ১০ টায় উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে ৬৮জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে ৪ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী, সাধারণ সদস্য পদে ৪৬৫ জন প্রার্থীর মধ্যে ২২ জন এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ড এর সদস্য মহিলা ১৪২ জন প্রার্থীর মধ্যে ১ জন প্রার্থীতা প্রত্যাহারের মধ্য দিয়ে সর্বমোট ৬৪৮ জন প্রার্থী নির্বাচনী মাঠে নিজ নিজ প্রতীক নিয়ে প্রচার-প্রচারনা ও ভোটারদের দারে দারে ভোট প্রার্থনা শুরু করেছে।

চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ২ লক্ষ ৩১ হাজার ৮৬৪ জন ভোটার উপজেলার ১২ টি ইউনিয়নে তাদের মনোনীত পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিবেন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লক্ষ ১৭ হাজার ৯৮০ জন এবং মহিলা ভোটার এর সংখ্যা ১ লক্ষ ১৩ হাজার ৮৮৪। ১নং কৃষ্ণনগর ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ২২ হাজার ১০৯ জন এরমধ্যে পুরুষ ১১ হাজার ২৫৬ জন এবং মহিলা ১০ হাজার ৮৫৩ জন ভোটার তাদের ভোট দিয়ে একজন চেয়ারম্যান, ৯ জন সাধারণ সদস্য এবং ৩ জন সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্য নির্বাচিত করবেন। কৃষ্ণনগর ইউনিয়নে চূড়ান্তভাবে চেয়ারম্যান প্রার্থী ৮ জন। নৌকার শ্যামলী অধিকারী, লাঙ্গলের সাফিয়া পারভীন, স্বতন্ত্র প্রার্থী রবি উল্লাহ বাহার (ঘোড়া), আব্দুর রহমান মোল্লা( আনারস), রওসন কাগুচী(মোটরসাইকেল), শাহজাহান কবীর (হাতপাখা) নজরুল ইসলাম (চশমা) এবং আছানুর রহমান (অটোরিকশা)। ২ নং বিষ্ণুপুর ইউনিয়নে মোট ভোটারের সংখ্যা ২২ হাজার ১০৯ জন এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯ হাজার ৩২৮ জন এবং মহিলা ভোটার ৮ হাজার ৮১৮ জন এর মধ্যে ১ জন চেয়ারম্যান, ৯ জন সাধারণ সদস্য ৩ জন সংরক্ষিত ওয়ার্ডের সদস্য নির্বাচিত করবেন। চূড়ান্তভাবে ২ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন, নৌকার বর্তমান চেয়ারম্যান শেখ রিয়াজ উদ্দিন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম (আনারস)। ৩নং চাম্পাফুল ইউনিয়নে মোট ভোটারের সংখ্যা ১৩ হাজার ৮৩৩ জন এর মধ্যে পুরুষভোটার ৭ হাজার ৬৩ জন এবং মহিলা ভোটার ৬ হাজার ৭৭০ জন ভোটার তাদের ভোট দিয়ে ১ জন চেয়ারম্যান, ৯ জন সাধারণ সদস্য এবং ৩ জন সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্য নির্বাচিত করবেন।

চূড়ান্তভাবে ৩ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী হলেন, নৌকার বর্তমান চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক গাইন, স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল লতিফ (আনারস), আব্দুল হান্নান গাইন। ৪নং দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ১৪ হাজার ৯৬৮ জন এরমধ্যে পুরুষভোটার ৭ হাজার ৬৩৬ জন এবং মহিলা ভোটার৭ হাজার ৩৩২ জন ভোটার তাদের ইউনিয়নে ৯ জন সাধারণ সদস্য এবং ৩ জন সংরক্ষিত ওয়াড সদস্য ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন। উক্ত ইউনিয়নে চূড়ান্তভাবে ৪ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন, নৌকার গোবিন্দ কুমার মন্ডল, বিদ্রোহী প্রার্থী প্রশান্ত কুমার (ঘোড়া), স্বতন্ত্র প্রার্থী দিদারুল (চশমা), জুলফিকার আলী সাফুই(মটরসাইকেল) এবং খেলাফত আন্দোলনের হাফেজ শফিকুল ইসলাম( হাতপাখা)। ৫নং কুশুলিয়া ইউনিয়নে মোট ভোটারের সংখ্যা ১৯ হাজার ১১২ জন, এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৯ হাজার ৭৬৫ জন এবং মহিলা ভোটার ৯ হাজার ৪৪৭ জন, তাদের প্রত্যক্ষ ভোটের মাধ্যমে ৯ জন সাধারণ সদস্য এবং ৩ জন সংরক্ষিত মহিলা ওয়াড সদস্য নির্বাচিত করবেন। চূড়ান্তভাবে ৬ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী ভোট যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন, প্রার্থীরা হলো নৌকার আবুল কাশেম মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, স্বতন্ত্র প্রার্থী  শেখ এবাদুল ইসলাম (ঘোড়া), স্বতন্ত্র প্রার্থী লতিফুর রহমান খাঁন বাবলু (মোটরসাইকেল), খেলাফত আন্দোলনের তাইজুল ইসলাম (হাতপাখা), স্বতন্ত্র প্রার্থী আসাফ উদ দৌলা খান (আনারস) এবং রেজাউল করিম (চশমা)। ৬ নং নলতা ইউনিয়নে উপজেলার সর্বোচ্চ ২৯ হাজার ১৯৩ জন ভোটার এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১৪ হাজার ৮৬৭ জন এবং মহিলা ভোটার ১৪ হাজার ৩২৬ জন তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে ৯ জন সাধারণ সদস্য এবং ৩ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নির্বাচিত করবেন।

চূড়ান্তভাবে ভোটযুদ্ধে ৭ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী মাঠে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন, নৌকার আবুল হোসেন পাড়, স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান (চশমা) সাবেক চেয়ারম্যান এস.এম আসাদুজ্জামান সেলিম (মটরসাইকেল), সাইদুর রহমান (ঘোড়া), শাহিনুর রহমান (অটোরিকশা), আজমীর হোসেন (আনারস), খেলাফত আন্দোলনের শাহাদাত হোসেন (হাতপাখা)। ৭নং তারালী ইউনিয়ন এ মোট ১৮ হাজার ১৬৭ জন ভোটারের মধ্যে পুরুষভোটার ৯ হাজার ১৯৫ জন এবং মহিলা ভোটার ৮ হাজার ৯৭২ জন, তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে ৯ জন সাধারণ সদস্য এবং ৩ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নির্বাচিত করবেন। তারালী ইউনিয়নের চূড়ান্তভাবে ৪ জন ভোটযুদ্ধে নেমেছেন, প্রার্থীরা হলেন নৌকার বর্তমান চেয়ারম্যান এনামুল হোসেন ছোট, জামায়াতের মাও. আব্দুল গফুর (মোটরসাইকেল), স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যক্ষ একেএম শফিকুজ্জামান খোকন (আনারস) এবং খেলাফত আন্দোলনের মহব্বত গাইন (হাতপাখা)। ৮নং ভাড়াশিমলা ইউনিয়ন মোট ভোটারের সংখ্যা ২০ হাজার ৬৫৮ জন এরমধ্যে পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ১০ হাজার ৫০৮ জন এবং মহিলা ভোটার সংখ্যা ১০ হাজার ১৫০ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে ১ জন চেয়ারম্যান, ৯ জন সদস্য এবং ৩ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নির্বাচিত করবেন। চূড়ান্তভাবে ৫ জন প্রার্থী ভোটের মাঠে নেমেছেন।

প্রার্থীরা হলেন নৌকার আবুল হোসেন, বিদ্রোহী প্রার্থী থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান নাঈম (আনারস), স্বতন্ত্র প্রার্থী আফসার আলী (মোটরসাইকেল), আব্দুল কুদ্দুস গাজী ওরফে সাহেব (ঘোড়া) এবং খেলাফত আন্দোলনের শওকত বিশ্বাস (হাতপাখা)। ৯নং মথুরেশপুর ইউনিয়ন পরিষদে সর্ব মোট ভোটারের সংখ্যা ২২ হাজার ৬৮৮ জন, এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ১১ হাজার ৩৭২ জন এবং মহিলা ভোটার ১১ হাজার ৩১৬ জন, আগামী ২৮ নভেম্বর তাদের মূল্যবান ভোট দিয়ে ১ জন চেয়ারম্যান, ৯ জন সাধারণ সদস্য ৩জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নির্বাচিত করবেন। চূড়ান্তভাবে মথুরেশপুর ইউনিয়নে ১১ জন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়েছেন। প্রার্থীরা হলেন থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এর পুত্র নৌকার প্রার্থী ফিরোজ আহমেদ(বাবু), বর্তমান চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র প্রার্থী মিজানুর রহমান গাইন (ঢোল), আব্দুল অহেদ মারুফ (আনারস), বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাকিম (রজনীগন্ধা), শেখ তারিকুল ইসলাম(চাকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী শেখ নাজমুল ইসলাম (টেবিল ফ্যান), শেখ আলাউদ্দিন সোহেল (ঘোড়া), শেখ মোজাফফর হোসেন ওরফে মোজাম (চশমা), রমেশ চন্দ্র বিশ্বাস (অটোরিকশা), খিলাফত আন্দোলনের শাহজাহান সিরাজ খান (হাতপাখা) এবং শেখ আকুঞ্জি বাবলুর রহমান(টেলিফোন)।
১০ নং ধলবাড়িয়া ইউনিয়নে মোট ভোটারের সংখ্যা ১৭ হাজার ৫২৩ জন এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮ হাজার ৯৪৩ জন এবং মহিলা ভোটার ৮ হাজার ৫৮০ জন, তারা তাদের ভোটে অত্র ইউনিয়নে একজন চেয়ারম্যান ৯ জন সাধারণ সদস্য এবং ৩ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নির্বাচিত করবেন। চূড়ান্তভাবে ৫ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী ভোটের যুদ্ধে নেমেছেন। প্রার্থীরা হলেন নৌকার সজল মুখার্জী, স্বতন্ত্র প্রার্থী নৌকা পেয়ে বঞ্চিত বর্তমান চেয়ারম্যান গাজী শওকত (ঘোড়া) আনোয়ার সাদাত বাদশা (চশমা), শেখ ফিরোজ আলম (মোটরসাইকেল), স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল করিম (আনারস)। ১১ নং রতনপুর ইউনিয়ন মোট ভোটার সংখ্যা ১৯ হাজার ২১৫ জন এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৯ হাজার ৮১৭ জন এবং মহিলা ভোটারের সংখ্যা ৯ হাজার ৩৯৮ জন, ভোটার তারা তাদের যোগ্য প্রতিনিধি হিসেবে ১ জন চেয়ারম্যান ৯ জন ইউপি সদস্য ৩ জন সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য নির্বাচিত করবেন।

চূড়ান্তভাবে রতনপুর ইউনিয়ন এ ৩ জন প্রার্থী ভোটযুদ্ধে মাঠে নেমেছেন। প্রার্থীরা হলেন নৌকার এম আলী আল রাজি, বিএনপি'র স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল অহেদ (আনারস) এবং এসএম আনোয়ার হোসেন (ঘোড়া)। সর্বশেষ ১২ নং মৌতলা ইউনিয়নের মোট ভোটার সংখ্যা ১৮ হাজার ১৫২ জন এরমধ্যে পুরুষভোটার ৮ হাজার ২৩০ জন এবং মহিলা ভোটার এর সংখ্যা ৭ হাজার ৯২২ জন, আগামী ২৮ নভেম্বর সারাদিন তারা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে তাদের যোগ্য প্রার্থীকে নির্বাচিত করবেন। ভোটাররা তাদের মূল্যবান ভোট দিয়ে ৯ জন ইউপি সদস্য পুরুষ এবং ৩ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য কে নির্বাচিত করবেন। চূড়ান্তভাবে মৌতলা ইউনিয়নে ৫ জন প্রার্থী সরাসরি ভোটযুদ্ধে মাঠে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছে। প্রার্থীরা হলেন নৌকার রুহুল আমিন সরদার, সাবেক ইউপি সদস্য স্বতন্ত্র প্রার্থী ফেরদৌস (ঘোড়া), জাতীয় পার্টির সাবেক চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম (চশমা), বিএনপি'র স্বতন্ত্র প্রার্থী আলমগীর হোসেন (মোটরসাইকেল) এবং খিলাফত আন্দোলনের শেখ ওবায়দুর রহমান(হাতপাখা)। উপজেলার এই ৬৪ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী এরমধ্যে ১২ জন প্রার্থী আগামী ২৮ নভেম্বর ভোটারদের ভোটে নির্বাচিত হবেন।
 

এবিএন/রফিকুল ইসলাম/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ