ঝিনাইদহে আড়ম্বরে সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১৩:৫৩

বিদ্যার দেবী সরস্বতী। শুভ্র তার গায়ের রঙ। দেবীকে বিদ্যা, সঙ্গীত, বাণী ও জ্ঞানের অধিষ্ঠাত্রীও মনে করেন সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীরা। দেবীতে সন্তুষ্টি করে তার আর্শিবাদ পেতে ঝিনাইদহের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টান ও বাড়িতে আড়ম্বরে অনুষ্ঠিত হচ্ছে সরস্বতীর পূজা।

শনিবার সকাল থেকে জেলা শহরের সরকারি কেসি কলেজ, কেন্দ্রীয় বাড়োয়াড়ি তলা পূজা মন্দিরে ভিড় জমাতে থাকে শিক্ষার্থীসহ নানা শ্রেণী পেশার মানুষ। জ্ঞান লাভের আশায় মায়ের রাতুল চরণে পুষ্পাঞ্জলি প্রদান করেন শিক্ষার্থীরা। অজ্ঞতার অন্ধকার দূর করতে কল্যাণময়ী দেবীর পাদপদ্মে প্রণতি জানায় তারা। পূজা চলাকালীন সময় উলু ও শঙ্খ ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠে প্রতিটি পূজামন্ডপ।

শুভ কুমার বিশ্বাস নামের এক শিক্ষার্থী বলেন, প্রতিবারের ন্যায় এবারও সরকারি কেসি কলেজে সরস্বতী মায়ের পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মা সরস্বতী আমাদের  সকলকে বিদ্যা, বুদ্ধি দান করুক আমরা মায়ের কাছে এটাই কামনা করেছি।

অমিত্রা বিশ্বাস নামের আরেক শিক্ষার্থী বলেন, মা সরস্বতী বিদ্যার দেবী। আমরা যেহেতু শিক্ষার্থী, আমরা যেন ঠিকমত পড়াশোনা করতে পারি সেটা মায়ের কাছে কামনা করেছি। পড়াশোনার পাশাপাশি আমরা যেন ভালোমত সাহিত্য, সাংস্কৃতিক চর্চা শুদ্ধ ভাবে করতে পারি মা আমাদের সেই আর্শিবাদ করুক এই কামনা করেছি।

অমিয় মজুমদার অপু নামের এক পূজারী বলেন, প্রতি বছর মাঘ মাসের শুক্লপক্ষের পঞ্চমী তিথিতে সরস্বতী পুজো উৎযাপিত হয়। মাঘ মাসের পঞ্চমী তিথিতেই সরস্বতী প্রকট হয়েছিলেন। সরস্বতীকে সঙ্গীত, শিল্প, বাণী, বিদ্যা ও জ্ঞানের অধিষ্ঠাত্রী দেবী মনে করা হয়। এদিন বিদ্যারম্ভ করলে জ্ঞান বৃদ্ধি হয়। এই দিনটি যে কোনও শুভ কর্ম সম্পন্ন করার জন্য উৎকৃষ্ট।

এবিএন/নয়ন খন্দকার/গালিব/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ