শিমুলিয়া ঘাটে ফেরির শেষ সাইরেন

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৫ জুন ২০২২, ০৯:৫০

সময় তখন শুক্রবার বিকেল সাড়ে চারটা। মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ৩ নম্বর ঘাটে বেগম রোকেয়া ফেরির সাইরেন বাজছিল ঘাট ছাড়ার। শিমুলিয়া-মাঝি ঘাট রুটে কি শেষ ফেরি? ফেরির মাস্টার হাসান ইমাম নিশ্চিত করে বলতে না পারলেও জানালেন, কাল (শনিবার) পদ্মা সেতু উদ্বোধন হবে। মানুষ তো সেতু দিয়েই যাবে। উল্টো তার প্রশ্ন, ফেরি কি আর চলবে?

শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের পর রোববার থেকেই সাধারণ মানুষের যাতায়াতের জন্য তা খুলে দেওয়ার কথা রয়েছে। এরপর থেকে বহুল ব্যস্ত এই ঘাটে হয়তো ফেরি-লঞ্চের সাইরেন বাজবে না। কমে যাবে মানুষের উত্তাল পদ্মাপাড়ি দেওয়ার ভোগান্তি আর হয়রানি।

বেগম রোকেয়া ফেরি ছেড়ে যাওয়ার কিছুক্ষণ আগেই ঘাট ছাড়ে ক্যামেলিয়া ফেরি। এই ঘাট থেকে শেষ যাত্রা চিন্তা করে ফেরির কর্মী মোবারক হোসেন তার স্ত্রী ও সন্তানকে শুক্রবার নিয়ে এসেছিলেন ফেরিতে। সেখান থেকেই দেখান পদ্মা সেতু।

মোবারক হোসেন বলেন, আজকেই (শুক্রবার) হয়তো এই রুটে তার ফেরির শেষ চলা। এজন্য স্ত্রী-সন্তানকে ফেরি দেখাতে নিয়ে এসেছেন। হয়তো এরপর অন্য রুটে চলে যাবেন।

ক্যামেলিয়া ফেরিতে ছিলেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. হেলাল উদ্দিন। তার বাড়ি শরীয়তপুরে। তিনি বলেন, ঘাটে সব সময়ে ভোগান্তিতে পড়তে হতো। মানুষকে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হতো। রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকতো। এখন আর কোনো ভোগান্তি হবে না, ফেরির জন্য অপেক্ষা করতে হতো না। রাষ্ট্রনায়ক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পদ্মা সেতু আজ বাস্তবরূপে।

শরীয়তপুরের বাসিন্দা মনির হোসেন রূপালী ব্যাংকের কর্মকর্তা। শুক্রবার ক্যামেলিয়া ফেরিতে ছিলেন তিনি। জানালেন, ঘণ্টার পর ঘণ্টা ফেরি ঘাটে অপেক্ষা করতে হয়েছে তাদের। ফেরির জন্য ঘাটে লাশের পচনও ধরেছে, রোগী মারা গেছেন পথেই। এসবের অবসান হচ্ছে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে। এজন্য তারা কৃতজ্ঞ প্রধানমন্ত্রীর কাছে।

ওই ফেরিতেই মাহমুদুল হাসান সুমন নামে একজন গাড়ি ব্যবসায়ী বলেন, আজকেও ফেরির জন্য দুই ঘণ্টা অপেক্ষা করেছেন। পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের কারণে সব ভোগান্তি, হয়রানি জাদুঘরে যাবে।

শিমুলিয়া ঘাট কতৃর্পক্ষ বলছে, শনিবার প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে এমনিতেই ফেরি ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকবে। রোববার সকালে সবার জন্য সেতু খুলে দিলে নৌরুটে আর যাত্রী থাকবে না। তবে এখনও বিআইডব্লিউটিসি থেকে তারা কেনো নির্দেশনা পাননি। হয়তো ফেরিগুলো অন্য রুটে সরিয়ে নেওয়া হবে।
 

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

এই বিভাগের আরো সংবাদ