পাল্টে যাচ্ছে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌ রুট, ভোগান্তি ছাড়াই নদী পার

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৮ জুন ২০২২, ১৭:২১

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার অন্যতম প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ঘাট এখন যানবাহন ও যাত্রী তুলনামূলক কমে গেছে। 

২৫জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর থেকেই ব্যস্ততম দৌলতদিয়া ঘাটে নেই যানবাহন ও যাত্রীর চাপ। আগে যেখানে প্রতিদিন ৪/৫ কিলোমিটার যানবাহনে দীর্ঘ সারি দেখা যেতো সেখানে ঘাট এলাকা এখন থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। যাত্রী ও যানবাহনের চাপ না থাকায় ঘাট কেন্দ্রীক ব্যবসা বাণিজ্য কমে গেছে। হতাশ হয়ে পরেছেন হকার সহ ছোট ছোট দোকানীরা।

আজ মঙ্গলবার (২৮জুন) সকাল ৯ টা থেকে বেলা সাড়ে বিকেল  টা পর্যন্ত ঘাট এলাকায় অবস্থান করে দেখা গেছে, দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় যাত্রী ও যানবাহনের চাপ নেই।দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা যানবাহনগুলো ঘাট এলাকায় এসে সরাসরি ফেরিতে উঠতে পারছে। আগে যেখানে যানবাহন গুলোকে ফেরির জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা মহাসড়কে অপেক্ষা করতে হতো। এখন সেখানে ফেরিগুলো যানবাহনের জন্য ঘাটে অপেক্ষা করছে।

এছাড়াও দেখা যায় ব্যস্ততম ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক একদমই ফাঁকা। ফেরির টিকিট কাউন্টারের সামনে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে আসা যানবাহনের ঘাট প্রতিনিধিদেরও তেমন ব্যস্ততা নেই। ছিল না পণ্যবাহী গাড়ির দীর্ঘ সারি। ঘাটে আসা যানবাহনের মধ্যে ছিল বরিশাল, খুলনা বা গোপালগঞ্জ জেলার দূরপাল্লার পরিবহন। 

এছাড়াও আগে যেখানে কুরবানি ঈদকে সামনে রেখে পশুবাহী ট্রাকগুলোকে ঘাটে এসে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হতো সেখানে এখন পশুবাহী ট্রাকগুলো সরাসরি ফেরিতে উঠছে। এতে  ট্রাকচালক ও শ্রমিকেরা খুশি।পদ্মা সেতু চালু হওয়াতে দৌলতদিয়া ঘাটে চাপ কমাতে তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান।

কুমারখালী থেকে আসা কুরবানীর গরু বহনকারী ট্রাক চালক শরিফুল ইসলাম বলেন, গত বছর এই ঘাটে আমাদের অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। নদী পার হতে মহাসড়কে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হয়েছে। এতে গরমে অনেক পশু অসুস্থ হওয়াসহ মারাও গেছে। কিন্তু এবছর ঘাটের চিত্রটা অনেকটাই আলাদা। পদ্মা সেতু চালু হবার পর ঘাটে কোন যানবাহনের চাপ নেই। আমি ঘাট এলাকায় এসে ১০ মিনিট অপেক্ষা করেই ফেরিতে উঠতে পেরেছি।

কুষ্টিয়া থেকে আসা এসবি সুপার ডিলাক্সের চালক রিয়াজুদ্দিন বলেন, হঠাৎ করেই ঘাটের চিত্র পুরোটাই পাল্টে গেছে। ঘাটে এসে এখন আর ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে না।ফেরির টিকিট কাটতে যতটুকু সময় লাগছে। ঘাটে গিয়ে দেখা যাচ্ছে ফেরিগুলো যানবাহনের অপেক্ষায় রয়েছে। তবে যানবাহন কম থাকায় ফেরি ভরতে সময় বেশি লাগছে।

৫ নং ফেরিঘাটের পন্টুনে ডাব বিক্রেতা কামাল পাটুয়ারি বসে অলস সময় পার করছে। পন্টুনে উঠে তার দিকে এগুতেই সে বলে ভাই ডাব খাবেন। এসময় তার সাথে এই প্রতিবেদকের কথা হলে তিনি মুখটা মলিন করে বলেন,আমাদের আর ব্যবসা বাণিজ্য নাই। পদ্মা সেতু চালু হবার পর থেকেই ঘাটে যানবাহন ও যাত্রীর চাপ নেই। ঘাট একদমই ফাঁকা। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আগে পর্যন্তও ঘাট এলাকা জমজমাট থাকতো। ঘাটে মানুষ থাকলে বেঁচা বিক্রি ভালো হয়।যাত্রী শূন্য ঘাট থাকলে আমার সংসার চলবো কেমনে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাট শাখার ব্যবস্থাপক প্রফুল্ল চৌহান বলেন, আমাদের টিকিট বিক্রি এখন অর্ধেকে নেমে এসেছে।ঘাট এলাকায় যাত্রী ও যানবাহনের কোন চাপ নেই।যানবাহনগুলো ঘাটে এসে সরাসরি ফেরির দেখা পাচ্ছে। বর্তমানে এই রুটে বহরে থাকা ২১ টি ফেরির মধ্যে  ১৮ টি ফেরি চলাচল করছে।

বিআইডব্লিউটিসি আরিচা কার্যালয়ের  ডিজিএম শাহ মো. খালেদ নেওয়াজ বলেন, পদ্মা সেতু চালু হবার পর ব্যস্ততম দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় যানবাহনের সংখ্যা কমছে।আগে মহাসড়কে যানবাহন অপেক্ষা করতো এখন ঘাটে ফেরি অপেক্ষা করে।তবে যানবাহন একদমই পার হচ্ছে না এমন না, আগে যা পার হতো এখন তার অর্ধেক পার হয়।

এবিএন/খন্দকার রবিউল ইসলাম/জসিম/আব্দুর রাজ্জাক

এই বিভাগের আরো সংবাদ