ফরিদপুরে অনুষ্ঠিত হল দুই দিনব্যাপী জাতীয় বিতর্ক উৎসব

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৩ জুলাই ২০২২, ১১:৪৩

গতকাল শনিবার বিকেলে স্থানীয় কবি জসীমউদ্দীন হলে সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা ডক্টর তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বীর বিক্রম।

‘মোরা প্রকৃতির মত স্বচ্ছল’  শিরোনামে  শুক্র ও শনিবার দু'দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত বিতর্ক উৎসবের আয়োজন করে ফরিদপুর ডিবেট ফোরাম ।

সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, সভ্যতা একদিনে গড়ে উঠেনি, মানুষের মুক্ত চিন্তার বিকাশ ও যুক্তি তর্কের মধ্যে দিয়েই আজকের এই আধুনিক বিজ্ঞান ও সমাজের উদ্ভব হয়েছে।

সক্রেটিস এর মতো দার্শনিকেরা যে পথ দেখিয়ে গেছেন তারই ধারাবাহিকতায় আজ তোমরা বিতক্র্ করে যুক্তিবাদী সমাজ বিনির্মানের জন্য কাজ করে যাচ্ছো। এটি খুবই আশার কথা যে যুবসমাজের বেশিরভাগই যখন মোবাইলে ফেজবুক, হোয়াটসএপ নিয়ে সময় কাটাচ্ছে তখন তোমরা একটু ভিন্ন চিন্তা নিয়ে সমাজ গঠনে নিজেদের নিয়োজিত রেখেছো। বিতার্কিকদের সাধুবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, এজন্য অনেক পড়াশোনা করতে হবে, ইতিহাস ও ঐহিত্য সম্পর্কে জানতে হবে।

বিশেষ অতিথি হা-মীম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও এফবিসিসিআইএর সাবেক সভাপতি এ কে আজাদ তার বক্তব্যে বলেন, যারা বিতর্ক করে তারা মেধাবী হয়, কারন মেধা ছাড়া যুক্তি তর্ক উপাস্থাপন করা যায় না, এই মেধাবীদের বিকাশ আমরা চাই। আমরা যারা সমাজে প্রতিষ্ঠিত হতে পেরেছি তাদের এজন্য দায়িত্ব নিতে হবে। তিনি বলেন, কোন মেধাবী ছেলে-মেয়ে যাতে অর্থের অভাবে ঝরে না পড়ে, টাকার জন্য যাতে তাদের লেখাপড়া বন্ধ না হয় সেই দায়িত্ব নেবে এ কে আজাদ ট্রাষ্ট। তিনি উপস্থিত বিতর্কিত ও শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ জীবনে কর্মক্ষেত্রের জন্য নিজেদের যোগ্য হয়ে গড়ে উঠার আহবান জানান।

ফরিদপুর ডিবেট ফোরামের সভাপতি অমিত ঘোষের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শাকিল আহমেদ সাগরের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন, সিলেট ৫ আসনের সংসদ সদস্য হাফিজ আহমেদ মজুমদার, ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার, বাংলাদেশ সরকারের সাবেক সচিব ও নোয়াবের মহাসচিব আখতার হোসেন খান, বাংলাদেশ চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রিজের সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম নিরু, বাংলাদেশ চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক মিজানুর রহমান, ফরিদপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক মোল্যা ও ফরিদপুর ডিবেট ফোরামের উপদেষ্টা শওকত আলী জাহিদ।

বিতর্ক উৎসবের চূড়ান্ত পর্বে স্কুল পর্যয়ে চ্যাম্পিয়ান হয়েছে ফরিদপুর জিলা স্কুল, রানার্স আপ হয়েছে ফরিদপুর পুলিশ লাইনস হাই স্কুল। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে খুলনা প্রকৌশল বিশ্ব বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ান ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় রানার্স আপ হয়।

সমাপনী অনুষ্ঠানের আগে অতিথিদের উপস্থিতিতে আকর্ষণীয় সংসদীয় ফরমেটে প্রদর্শনী বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়। এর বিষয় ছিলো ‘এই সংসদ মনে করে, পদ্মা বিভাগের জন্য অবকাঠামোগত উন্নয়ই মূল চ্যালেঞ্জ’। খ্যাতিমান বিতার্কিকদের উপস্থাপনায় এই বিতর্ক সকলকে মুগ্ধ করে।

এবিএন/কে এম রুবেল/জসিম/গালিব

এই বিভাগের আরো সংবাদ