আগামী সপ্তাহে প্রতারিত গ্রাহকদের টাকা ফেরত প্রক্রিয়া শুরু

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২০ জানুয়ারি ২০২২, ২০:১৬

বন্ধ ১৫ ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের ৪১ মামলার অগ্রগতি নেই। আগামী সপ্তাহ থেকে শুরু হবে গ্রাহকদের টাকা ফেরত প্রক্রিয়া।

প্রতারণার অভিযোগে বন্ধ থাকা ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোতে গ্রাহকের আটকে থাকা টাকা ফেরত দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। আগামী সপ্তাহ থেকেই শুরু হবে কিউকম ডটকমের প্রতারিত গ্রাহকদের টাকা ফেরত দেয়ার প্রক্রিয়া।  এদিকে, পণ্যের জন্য অগ্রিম টাকা দিয়েও পণ্য বা টাকা ফেরত না পাওয়ায় হতাশ গ্রাহকরা। ইভ্যালী ও ই অরেঞ্জসহ ১৫টি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলারও কোনো সন্তোষজনক অগ্রগতি নেই।

চটকদার বিজ্ঞাপন আর নানা অফারে গ্রাহকের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে আটক রয়েছেন ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জ, কিউকম ডট কমসহ এক সময়ের জনপ্রিয় ১৫টি ই-কমার্স সাইটের উদ্যোক্তা পরিচালকসহ উর্ধ্বতনরা। প্রায় ৫ মাস পেরিয়ে গেলেও আটক উদ্যোক্তাদের বিষয়ে অর্থপাচারসহ নানা অভিযোগের তদন্তের এখনো কোনো সুরাহা করতে পারেনি পুলিশ।

সিআইডি'র বিশেষ পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবির বলেন, আমাদের কাছে মানি-লন্ডারিং নিয়ে তিন-চারটা মামলা আছে। সেগুলোর এখনো তদন্ত চলছে। বলার মত নতুন করে কোন তথ্য নেই।

একে তো প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ তারওপর উদ্যোক্তারাও কারাগারে, মামলারও অগ্রগতি নেই, এ অবস্থায় প্রতারিত গ্রাহকরা আছেন মহা দুশ্চিন্তায়।

তারা বলেন, আমরা অনেক টাকা ইনভেস্ট করে অনেক পণ্য অর্ডার করেছি। এখন কোন পণ্যও পাচ্ছি না, টাকাও পাচ্ছি না। প্রতিষ্ঠানগুলোও বন্ধ হয়ে আছে। আমরা এখনো হতাশাগ্রস্থ টাকা বা পণ্য কি আমরা আদৌ পাবো কি না। সরকার কিছু একটা ব্যবস্থা করুক।

এদিকে, আগামী সপ্তাহ থেকেই কিউকম ডট কমে প্রতারিত গ্রাহকেদের আটকে থাকা টাকা ফেরত দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হবে বলছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এ এইচ এম সফিকুজ্জামান বলেন, আমরা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছি। আমাদেরকে ক্লিয়ারেন্স দিয়ে দিলেই আগামি সোমবার বা মঙ্গলবার বাণিজ্যমন্ত্রী,স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং আইসিটি মন্ত্রীকে নিয়ে একটা অনুষ্ঠান করবো। ওই অনুষ্ঠানের মাধ্যমেই আমরা কিউকমের যে টাকা আটকে আছে তা দেয়া শুরু করবো।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বলছে, ই-ভ্যালির প্রতারিত গ্রাকদের আটকে থাকা টাকা ফেরতের বিষয়ে উচ্চ আদালতের নির্দেশনার অপেক্ষায় আছে সরকার। 

এর আগে ১৫টি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে ৪১টি মামলা দায়ের করা হলেও যার কোনোটির অভিযোগপত্র এখনো দিতে পারেনি পুলিশ।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ